১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯
রংপুর-৩ আসনে উপ-নির্বাচন

সাদ এরশাদ ছাড়া জাপার কেউ মনোনয়নপত্র জমা দিবে না : মহাসচিব

গণমাধ্যমে কথা বলছেন জাপা মহাসচিব রাঙ্গা - ছবি : নয়া দিগন্ত

জাতীয় পার্টির (জাপা) মহাসচিব ও বিরোধী দলীয় চীফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা জানিয়েছেন, রংপুর-৩ আসনে উপ-নির্বাচনে সাদ এরশাদ ছাড়া জাতীয় পার্টির আর কেউ মনোনয়নপত্র জমা দিবেন না। এই আসনে জাতীয় পার্টির মনোনয়নপ্রত্যাশিরা সবাই সাদকে সমর্থন দিয়েছেন বলেও জানান তিনি।

আজ সোমবার বেলা সাড়ে তিনটায় রংপুর নির্বাচন অফিসে সাদ এরশাদের মনোনয়নপত্র দাখিলের পর সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

রাঙ্গা বলেন, আমরা মনোনয়নের জন্য একটি পাঁচ সদস্যের কমিটি করেছিলাম। পরবর্তীতে আমাদের মাঝে চেয়ারম্যান এবং বিরোধী দলীয় নেতা নিয়ে একটু ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিল। পরে আমি উদ্যোগ নিয়ে দুইপক্ষের পাঁচজন করে প্রতিনিধি নিয়ে বিষয়টি মীমাংসার জন্য ঢাকার একটি অভিজাত হোটেলে বসি। সেখানে বিষয়টি সমঝোতা হয়। সেখানেই আমাকে ও পার্টির চেয়ারম্যানকে দায়িত্ব দেয়া হয় রংপুর-৩ আসনের উপ-নির্বাচনে প্রার্থী সিলেক্ট করার জন্য। সেখানেই আমি বিষয়টি চেয়ারম্যানের ওপর এককভাবে দায়িত্ব দেই। তিনি সেখানেই এরশাদ পুত্র রাহগীর আল মাহী সাদকে চূড়ান্ত মনোনয়ন দেন। এই আসনে যারা জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন তারা সবাই আমার সাথে ফোনে কথা বলেছেন এবং সাদকে সমর্থন দিয়েছেন। আমাদের মধ্যে কোনো বিরোধ নেই।

জাপা মহাসচিব বলেন, সংসদে মরহুম এরশাদ স্যারের জন্য শোক প্রস্তাব নেয়া হয়েছে। সেখান বলা হয়েছে, তিনি ভালো মানুষ ছিলেন। এই আসনের বর্তমান প্রার্থী সাদ নির্বাচিত হয়ে তার বাবার অসমাপ্ত কাজ করবে। আমরা মনে করি, রংপুরের উন্নয়নের জন্য রংপুরের মানুষ সিদ্ধান্ত নিবে। এরশাদকে যেভাবে রংপুরের মানুষ বিজয়ী করেছেন। সেভাবেই সাদকেও বিজয়ী করবেন।

তিনি বলেন, মরহুম এরশাদ স্যার পার্টির চেয়ারম্যান থাকার কারণে সময় কম পেয়েছেন। সেদিক বিবেচনা করলে সাদ অনেক বেশি সময় দিতে পারবেন। আশা করি তার মাধ্যমে রংপুরের রাস্তাঘাটসহ সকল ক্ষেত্রে আরো ব্যাপক উন্নয়ন হবে। এখানে আমরা সরকার এবং বিরোধী দল একত্রে মিলে উন্নয়ন করবো।

আচরণবিধি লঙ্ঘনের ব্যাপারে রাঙ্গা বলেন, আমি সাদ এরশাদের সাথে আসলেও আমি রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে যাইনি। এখানে আমি মহাসচিব হিসেবে আমাকে দায়িত্ব পালন করতে এসেছি। এরশাদ বেঁচে থাকাকালীন সময়েও আমি এভাবেই আপনাদের কাছে এসেছিলাম।

এরশাদের ভাতিজা আসিফ প্রসঙ্গে রাঙ্গা বলেন, এরশাদ স্যার তাকে বহিষ্কার করে গেছেন। এখন তার চাচা চেয়ারম্যান আছেন। তার বিষয়টি তিনি বিবেচনা করবেন। এখানে আমার কোনো হাত নেই।

মহাজোটের প্রার্থী প্রসঙ্গে রাঙ্গা বলেন, আমরা সংসদে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে বলেছি এই আসনটি ভিভিআইপি আসন। এরশাদের আসন। আমরা একসাথে গত নির্বাচনেও মহাজোটবদ্ধ নির্বাচন করেছি। এবারো তাই হবে। আশা করি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মহাজোটবদ্ধভাবে এখানে নির্বাচন করার ব্যবস্থা করবেন।

গত ১৪ জুলাই রংপুর-৩ (সদর) আসনের এমপি জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা সাবেক প্রেসিডেন্ট ও বিরোধী দলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পর ১৬ জুলাই আসনটি শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। গত ১ সেপ্টেম্বর আসনটিতে নির্বাচনের জন্য তফসিল ঘোষণা করা হয়।

তফসিল অনুযায়ী আগামী ৫ অক্টোবর এখানে ভোট গ্রহণ হবে ইভিএম পদ্ধতিতে। এজন্য মনোনয়নপত্র জমা ও দেয়া যাবে ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। বাছাই হবে ১১ সেপ্টেম্বর। প্রত্যাহারের শেষ দিন ১৬ সেপ্টেম্বর।

রংপুর সদর উপজেলা এবং রংপুর সিটি করপোরেশনের ১-৮ নম্বর ওয়ার্ড ছাড়া বাকি এলাকা নিয়ে গঠিত রংপুর-৩ আসনে ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৪১ হাজার ৬৭৩ জন। এই আসনে ভোটকেন্দ্র ১৩০টি, ভোটকক্ষ ৯১০টি।


আরো সংবাদ