২১ অক্টোবর ২০১৯

বিএনপির চেয়ে আওয়ামী লীগ আমলে বেশি নির্যাতিত হচ্ছি : হিটলার

বিএনপি আমলে যতটা নির্যাতিত হইনি আওয়ামী লীগ আমলে তার চেয়ে বেশি নির্যাতিত হচ্ছি। এমন অভিযোগ করেছেন সৈয়দপুর পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি হিটলার চৌধুরী ভলু। তিনি ৫ অক্টোবর শনিবার রাত ১১টায় শহরের গোলাহাটের ঘোড়াঘাট এলাকায় নিজ বাড়িতে সংবাদ সস্মেলনের ওই অভিযোগ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করে বলেন, গত ১২ সেপ্টেম্বর রাতে তার নিজ বাড়িতে স্ত্রী সুরভী ইসলাম পপিকে (৩৫) গলা কেটে হত্যার চেষ্টা চালানো হয়। একই এলাকার মুন্নার ছেলে রাজা এবং মৃত সাগিরের ছেলে জীবন ওই ঘটনাটি ঘটায়। পরে খবর পেয়ে সৈয়দপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। আহত স্ত্রী সুরভী ইসলাম পপিকে নিয়ে যখন হাসপাতালে দৌঁড়ঝাঁপ করছিলেন, ঠিক সেই সময় সৈয়দপুর থানা পুলিশ তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় ডেকে এনে ৬/৭ ঘন্টা কালক্ষেপণ করেন। এরপর তিনি বাদী হয়ে স্ত্রী হত্যা চেষ্টার মামলা দায়ের করতে চাইলে প্রথমে পুলিশ তাকে মামলার বাদী করতে অনীহা প্রকাশ করেন। পরবর্তীতে অনেক দেনদরবারের পর তিনি বাদী হয়ে তাঁর স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যার চেষ্টাকারী রাজা ও জীবনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা এক ব্যক্তিসহ তিনজনের বিরুদ্ধে সৈয়দপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

হিটলার চৌধুরী ভলু আরও বলেন, মামলার পর থেকে আসামিদের গ্রেপ্তারে তেমন কোন তৎপরতা দেখায়নি পুলিশ। পুলিশ জানায় আসামীরা ভারতে পালিয়ে গেছে। এ কথায় আশ্বস্ত না হয়ে তিনি নিজেই আসামিদের বিষয়ে খোঁজখবর নিয়ে দেশেই তাদের অবস্থানের বিষয়ে নিশ্চিত হন। এরপর আসামীদের পরিবার ও স্বজনদের মাধ্যমে গত শনিবার সন্ধ্যায় তাদের সৈয়দপুরে নিয়ে আসা হয়। এরপর সংবাদকর্মীদের উপস্থিতিতে আসামিদের থানা পুলিশের হাতে হস্তান্তরের প্রস্তুতিকালে পুলিশ তাঁর বাড়িতে উপস্থিত হন। সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে আসামিদের পুলিশের হাতে তুলে দিবেন বলে জানালে পুলিশ চরম ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন।

এ ছাড়া তিনি বলেন, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শেখ আব্দুল্লাহ সোহাগ আসামিদের ১০ হাজার টাকা দিয়ে বলে যে, হিটলার চৌধুরীর স্ত্রীকে হত্যা করতে হবে। এ কাজে সফল হলে তাদের নগদ ১০ লাখ টাকা ও সৈয়দপুর শহরের মিস্ত্রিপাড়ায় একটি বাড়ি দেয়া হবে। এভাবে নিজের দলের লোকনজই আমাকে বিপদে ফেলছে। এ কারণে বিএনপি আমলে আমি যতটা না নির্যাতিত হয়েছি, আওয়ামী লীগ আমলে একজন আওয়ামী লীগ নেতা হয়েও নির্যাতিত হচ্ছি। তিনি তাঁর স্ত্রীকে হত্যা চেষ্টার মামলার আসামীদের গ্রেপ্তারের দাবি জানান। অন্যথায় এলাকাবাসীকে সঙ্গে নিয়ে আন্দোলন করা হবে। সংবাদ সম্মেলনে হিটলার চৌধুরী ভলুর মা মোছা. ফাতেমা বেগম চৌধুরী, স্ত্রী সুরভী ইসলাম পপি ও পরিবারের সদস্যসহ এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন।

এ নিয়ে কথা হলে সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহজাহান পাশা বলেন, মামলার বাদী হিটলার চৌধুরী আসামিদের তাঁর বাড়িতে এনেছেন খবর পেয়ে আমি সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে সেখানে যাই। এ সময় মামলার বাদী আসামীদের পুলিশের হাতে তুলে না দিয়ে উল্টো পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে অসদাচরণ করেন। পবরর্তীতে তিনি (ভলু) দুই আসামীসহ বাড়ি থেকে নিজেও কৌশলে সটকে পড়েন। ফলে সেখান থেকে আসামিদের গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।


আরো সংবাদ