১৫ নভেম্বর ২০১৯

জাপা-আ’লীগ এক হওয়ায় রংপুর উপ-নির্বাচনে প্রতিযোগিতা হয়নি : জিএম কাদের

জাপা-আ’লীগ এক হওয়ায় রংপুর উপ-নির্বাচনে প্রতিযোগিতা হয়নি : জিএম কাদের - নয়া দিগন্ত

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেছেন, রংপুর-৩ শুন্য আসনের উপ-নির্বাচনে দলীয় নেতাকর্মীরা ভোট দিয়েছে। অন্যান্য ভোটাররা আগেই ধরে নিয়েছিল যে এখানে লাঙ্গল বিজয়ী হবে। ফলে অনেকেরই ভোট দিতে আসার আগ্রহটা কম ছিল। সেকারণেই হয়তো ভোট কম হয়েছে। প্রতিযোগিতা এখানে তেমন একটা হয়নি। আগের নির্বাচনগুলোতে যখন আমরা বিপুল ভোটে বিজয়ী হতাম। এখানে দ্বিতীয় স্থানে থাকতো আওয়ামীলীগ, তারা মোটামুটি একটা ভালো ভোট নিয়ে থাকতো। কিন্তু যখন এ দুটি এক হয়ে গেছে। তখন এখানে প্রতিযোগিতার সম্ভাবনা খুবই কম ছিল। ফলে মানুষও আগ্রহ পায়নি ভোট দিতে।

সোমবার দুপুরে রংপুর মহানগরীর পল্লীনিবাসে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা যুগ্ম সম্পাদক হাজী আব্দুর রাজ্জাক, যুগ্ম সম্পাদক শাফিউল ইসলাম শাফি, সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সি আব্দুল বারীসহ দলের অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

জিএম কাদের বলেন, এবারের নির্বাচন এবং ৯০ এর পর থেকে প্রতিটি নির্বাচনে এখানে লাঙ্গল জয়ী হয়েছে। যেহেতু আওয়ামীলীগ আমাদের প্রার্থীকে সমর্থন দিয়ে তাদের প্রার্থী প্রত্যাহার করেছে, সেকারণে এখানে তেমন কোন প্রতিযোগিতা হওয়ার কথা নয়। যেহেতু আমাদের লাঙ্গলের প্রার্থী বিজয়ী হবে। সেকারণে অনেকেই এখানে ভোট দেয়ার ব্যাপারে আগ্রহ দেখাননি। যেদিন আওয়ামীলীগ প্রার্থী প্রত্যাহার করেছে এবং আমরা আমাদের প্রার্থী নিয়ে এগিয়ে এসেছি। সঙ্গে সঙ্গে রংপুরের মানুষ সিদ্ধান্ত নিয়েছে, লাঙ্গলকে বিজয়ী করবে। আমাদেরকে বিজয়ী করবে। সেকারণে এখানে ভোটে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা কিংবা প্রতিযোগিতা সেরকম কোন পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। হওয়ার কথাও ছিল না। দরকারও ছিল না। সেকারণে হয়তো মানুষ বেশি ভোট কেন্দ্রে আসেনি বলে আমার বিশ্বাস। তথাপি আমাদের প্রার্থী বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হয়েছেন।

জিএম কাদের বলেন, আমাদের বিজয়ের ধারাবাহিকতা সামনের দিকে ধরে রাখতে সক্ষম হবো। রংপুরের মানুষ তারা যে প্রত্যাশা নিয়ে জাতীয় পার্টিকে সমর্থন দিয়েছে। আমরা তাদের প্রত্যাশাগুলো পুরণ করতে সক্ষম হবো। তাদের যেগুলো অসুবিধা সুবিধা সেগুলো আমরা লক্ষ্য রাখবো। তাদের সামনের দিকে যেগুলো তারা মনে করবেন, তাদের উপকার হবে সেগুলো আমরা করবো, সেধরনের কাজ আমরা চিহ্নিত করবো এবং সামনে এগিয়ে নিবো। আমরা এরশাদের স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করবো, সাথে সাথে রংপুরবাসীর স্বপ্ন ও উত্তরবঙ্গবাসীর স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করবো। 

জিএম কাদের বলেন, সাদের জন্য পদ পদবি স্বাভাবিকভাবেই আসবে। বিষয়গুলোর সিদ্ধান্ত স্বাভাবিকভাবেই হবে। গুজবের ভিত্তিতে হবে না। আলাপ আলোচনা ও বাস্তবতার ভিত্তিতেই সেটা হবে। আমরা সামনের দিকে সেটা সিদ্ধান্ত নিবো।

ভতিজা আসিফের ব্যাপারে তিনি বলেন, এ বিষয়ে প্রসেস আছে। সেগুলো গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নির্বাচনে বিএনপির ভোট টেম্পারিংয়ের অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এই বিষয়ে সুনির্দিষ্ট আইন আছে। কারো যদি অভিযোগ থাকে। তিনি সাক্ষী প্রমাণসহ জায়গা মতো দাখিল করতে পারেন এবং সেই বিচারে যদি তিনি যদি জয়ী হন। তাহলে সেভাবে ব্যবস্থা হবে। তিনি বলেন, অভিযোগ অভিযোগই, যতক্ষণ পর্যন্ত তা প্রমাণিত না হয়। এবং প্রমাণিত হওয়ার জন্য আইনগত ব্যবস্থা আছে। আমি মনে করি এসব কথা সংবাদপত্রে আগে বা বলার পরে তারও আগে ওনার যদি সাক্ষি প্রমাণ থাকে। তাহলে তা নিযে তিনি সংশ্লিষ্ট জায়গায় অভিযোগ দাখিল করতে পারেন।

জিএম কাদের বলেন, আমি মনে করি না যে সাংগঠনিকভাবে আমরা দুর্বল। এখানে জনসমর্থন আছে প্রবল। এবং সংগঠন শক্তিশালী আছে। আমি মনে করি এসবের কারণেই আমরা বিজয়ী হয়েছি। এবং ভবিষ্যতে আমাদের এই বিজয় ধরে রাখতে আমাদের কোন অসুবিধা হবে না। এই বিজয়কে আমরা সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবো। এবং আরও বেশি অন্যান্য বিজয়ের মাধ্যমে এই ধারাবাহিকতাকে শক্তিশালি করবো।

ক্যাসিনো অভিযানকে স্বাগত জানিয়ে জিএম কাদের বলেন, শুরুতেই আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়েছিলাম। শুধু ক্যাসিনো নয়, যেকনো ধরনের অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযানের ব্যাপারে আমরা মহাজোটের নির্বাচনের আগে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম। প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্রতি দিয়েছিলেন। আমরা চাইবো এই অভিযান যেন সাফল্যজনকভাবে এগিয়ে যায়। আমরা প্রধানমন্ত্রীকে আশ্বাস দিয়েছি। এখনও দিতে চাই আপনার এই কাজে আমরা আপনার পাাশে থাকবো। যেভাবে সরকার সহায়তা চাইবে। সেভাবে সহায়তা করবো।

সাদ এর বক্তব্য

রংপুর-৩ আসনের নব নির্বাচিত সংসদ সদস্য রাহগির আলমাহি এরশাদ (সাদ এরশাদ) বলেছেন, আমার বিজয়ের জন্য জাতীয় পার্টি ও মহাজোটের সব নেতাকর্মীকে ধন্যবাদ জানাই। আমি আমার মা বেগম রওশন এরশাদকে ধন্যবাদ জানাই। আমার চেয়ারম্যান কাদের চাচা তাকেও আমি ধন্যবাদ জানাই। আমি প্রাইম মিনিস্টার শেখ হাসিনাকেও ধন্যবাদ জানাই। যাকে আমি আমার মায়ের মতো শ্রদ্ধা করি, সম্মান করি। রংপুর -৩ আসনে আমাকে সাহায্য করার জন্য। এক সাথে কাজ করার জন্য। আমি চেষ্টা করবো যে আমার মায়ের মাধ্যমে, আমার চাচার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে কোন দরকারি বিষয়ে ওনার সামনে গিয়ে প্রস্তাব করবো। ওনি আমাকে সাহায্য করবেন ইনশাআল্লাহ। আমি ওনার কাছে সাহায্য নিয়ে, উন্নয়নের ব্যাপারে অনেক কিছুই ওনার জানা আছে, রংপুরবাসীর জন্য কাজ করবো ইনশাল্লাহ।


আরো সংবাদ