১৭ নভেম্বর ২০১৯

রঙিন ঘর

-

নিজের বাড়ি রাঙাতে সবাই ভালোবাসে। একটি সুন্দর রঙ করা ঘর মুহূর্তেই উৎফুল্ল করে দিতে পারে আপনার মন। তাই পরিবারের সবার পছন্দমতো বাড়ির একেকটি কামরা সাজিয়ে তুলুন ভিন্ন রঙে। রঙ করারও কিছু নিয়ম আছে যা মেনে রঙ করলে তা হবে নিখুঁত এবং দীর্ঘস্থায়ী। সুতরাং রঙ করার আগে জেনে নিতে হবে সঠিকভাবে রঙ করার কিছু পদ্ধতি, থাকতে হবে কিছু পূর্বপ্রস্তুতি এবং বাছাই করে নিতে হবে রঙ। লিখেছেন তাসফিয়া তাজিন

আগেই রঙ নয়
ঘর সাজানোর জন্য আগেই রঙ করে নিতে হবে এটাই স্বাভাবিক কিন্তু আসল ব্যাপার তা নয়। আগেই ঘরে রঙ করে নিলে তার সাথে মানানসই আসবাবপত্র এবং ডেকোরেশন করা অনেকটাই কষ্টকর কিন্তু আগে যদি আসবাবপত্র পছন্দ করা থাকে এবং ডেকোরেশনের ধরন মাথায় থাকে, তবে তার সাথে মিলিয়ে রঙ বাছাই করা অনেকটাই সহজ।

আগে নমুনা বা স্যাম্পল দেখে নিন
প্রতিটি রুম কি ধরনের রঙ করবেন তার জন্য দেখে নিতে পারেন বিভিন্ন ধরনের স্যাম্পল। অনুপ্রেরণা নিতে পারেন বিভিন্ন ইন্টেরিওর ডিজাইনের ক্যাটালগ থেকে কিংবা ইন্টারনেট ঘেঁটে, পছন্দ অনুযায়ী ডিজাইন থেকে। আপনি কী ধরনের রঙ এবং ডিজাইন চানÑ তা মাথায় রেখেই শুরু করতে হবে রঙ করার প্রক্রিয়া।

প্রাধান্য দিন হালকা রঙ
হালকা রঙ প্রাধান্য দিতে হবে তার মানে এই না যে, গাঢ় রঙ করাই যাবে না। আপনার আগে সিদ্ধান্ত নিতে হবে যে আপনি আপনার রুমে মূল আকর্ষণ কিসে রাখতে চান। সেটি যদি হয় দেয়াল, তাহলে মনের মতো রঙ করুন, গাঢ় কিংবা হালকা। কিন্তু আপনি যদি আপনার রুমে দেয়ালের পাশাপাশি আসবাব এবং অন্য সব কিছুকেই আপনি আকর্ষণীয় করে তুলতে চান তাহলে হালকা রঙয়ের জুড়ি নেই, কারণ এই হালকা রঙ দেয়ালসহ ফুটিয়ে তুলবে রুমের অন্যসব আসবাবপত্র ও। এ ক্ষেত্রে বাথরুম এ গাঢ় রঙ ব্যবহার করতে পারেন, কারণ বাথরুমে বাকি সব কিছুই থাকে মোটামুটি হালকা রঙয়েরÑ যা গাঢ় রঙকে কমপ্লিমেন্ট করবে।

টেস্টার ব্যবহার করুন
বাজারে এখন মোটামুটি সব ব্র্যান্ডেরই টেস্টার পাওয়া যায়। শুরুতেই অনেকগুলো রঙ না কিনে পছন্দ অনুযায়ী টেস্টার কিনে নিতে পারেন। এতে রঙ দেয়ালে ভালো না লাগলে পরিবর্তনেরও সুযোগ থাকে এবং টাকা ও নষ্ট হয় না। সেই টেস্টারের রঙ দেয়ালের সামান্য কিছু অংশ জুড়ে লাগিয়ে নিতে পারেন এবং রঙ শুকানোর পর এক দিন সারা দিনে পর্যবেক্ষণ করবেন দিনের বিভিন্ন সময়ের আলোয় রঙটি কেমন লাগছে। মনে রাখবেন, সাদা দেয়ালের বিপরীত দেয়ালে কখনো রঙ টেস্ট করবেন না কারণ কোনো রঙই ফুটে উঠতে পারবে না।
দেয়ালের মোটামুটি বড় একটা অংশও জুড়ে টেস্টারের রঙ লাগিয়ে নিলে বাছাই করতে সুবিধে হবে। অন্যদিকে বেঁচে যাওয়া টেস্টারের রঙ ফেলে না দিয়ে পরে দেয়ালের বিভিন্ন নকশা করায় ও কাজে লাগাতে পারেন।

ফার্নিচারের পাশে ট্রায়াল দিন
রঙ শুধু দেয়ালেই নয়, ফার্নিচারের পাশেও পরীক্ষা করে দেখতে পারেন। একটি বোর্ডে রঙ করে তা আপনার আসবাবের পাশে ধরে যাচাই করুন রঙটি আসবাবের সাথে মানাচ্ছে কি না।

বেছে নিন সঠিক ধরনের রঙ
ফ্ল্যাট বা ম্যাট : এতে চকচকে ভাব থাকে না। বেডরুম, ড্রয়িং রুমের দেয়াল অথবা সিলিংয়ে ব্যবহারের জন্য উপযোগী।
ফ্ল্যাট এনামেল : কোনো চকচকে ভাব নেই কিন্তু ম্যাট রঙের চেয়ে পরিষ্কারে সুবিধা এই রঙ। পরিবারে ছোট শিশু থাকলে এই রঙ খুবই উপযোগী কারণ শিশুরা দেয়ালে আঁকিবুঁকি বা ময়লা করলেও পরিষ্কারের উপায় আছে।
এগশেল এনামেল : সামান্য চকচকে ভাব রয়েছে এবং লিভিং রুমে ব্যবহারের জন্য উপযোগী। এ ধরনের দেয়াল হালকা ভেজা কাপড় দিয়ে পরিষ্কার করা যায়।
স্যাটিন এনামেল : হালকা চকচকে ভাব রয়েছে এবং স্যাঁতসেঁতে ও ভেজা জায়গার আশপাশের দেয়ালে ব্যবহারের জন্য স্যাটিন এনামেলের জুড়ি নেই। সাধারণত রান্নাঘর এবং বাথরুমের দেয়ালের জন্য অধিক উপযোগী এই ধরনের পেইন্ট।

সময় বুঝে রঙ
বাড়ি রঙ করর জন্য বছরের একটি নির্দিষ্ট সময় বেছে নিলে ভালো। যেমন : গ্রীষ্মকালে আবহাওয়া প্রচণ্ড আর্দ্র থাকায় এ ঋতু বাড়িতে রঙ করার জন্য তেমন উপযোগী নয়, কারণ অতিরিক্ত আর্দ্রতার ফলে নতুন করা রঙে ফাটল ধরতে পারে কিংবা উঠে যেতে পারে। একইভাবে বর্ষাকালেও বৃষ্টির জন্য বাড়িতে রঙ করা তেমন সুবিধাজনক নয়। বাড়ির ভেতর বা বাইরে রঙ করার উপযুক্ত সময় হলো শীতকাল। এ সময় বাতাসে আর্দ্রতা কম থাকে যা রঙের কোনো ক্ষতি করে না এবং রঙ শুকায় ও তুলনামূলক দ্রুত।

সরঞ্জামের যতœ নিন
রঙ করার জন্য যেসব সরঞ্জাম অর্থাৎ রঙসহ রঙের বালতি, টুলস, রঙ করার ব্রাশ প্রভৃতি যতেœ রাখতে হবে। রঙের বালতি ঢাকনা দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে অথবা এলুমিনিয়াম ফয়েল দিয়ে মুড়ে রাখতে হবে। ব্রাশসহ অন্যান্য সরঞ্জাম প্লাস্টিকের র্যাপিং দিয়ে র্যাপ করে রাখতে হবে যেন রঙ শুকিয়ে শক্ত আকার ধারণ না করে অন্যথা পরবর্তীকালে রঙ করতে অনেক অসুবিধার সম্মুখীন হতে হবে।


আরো সংবাদ