১৯ নভেম্বর ২০১৯

চেনা সেলফ অচেনা আদলে

-

নিজের সৃজনশীল চিন্তাভাবনাকে কাজে লাগিয়ে বাসার ড্রয়িংরুম কিংবা স্টাডিরুম সাজাতে পারেন ভিন্নধর্মী বুকশেলফ দিয়ে। বুকশেলফে শুধু বই সাজালেই হলো না, বুকশেলফটাকে ঘরের সাথে মানানসইও হতে হবে। এতে বইয়ের পাশাপাশি ছোট ছোট ইনডোর প্ল্যান্ট, ছবির ফ্রেম, গ্লাস-জার, বুকেন্ড, মোমবাতি ইত্যাদি দিয়েও ডেকোরেশন করে নেয়া যায়।
আনকমন ফার্নিচার পছন্দ করলে গাছের গুঁড়ি দিয়ে তৈরি করে নিতে পারেন এই ভিন্নধর্মী বুক সেলফ। এটি তৈরিতে একটি গুঁড়ি ও কিছু তাকের দরকার হবে; তাই বানাতেও সময় কম লাগে এবং জায়গাও সাশ্রয় হয়। ঘরের কোনায় এ ধরনের বুক সেলফ রাখলে ঘরের জায়গাও নষ্ট হয় না, ঘরের সৌন্দর্যও বৃদ্ধি পায়।
খুব সহজেই হাতের কাছে পরে থাকা কাঠ দিয়ে ঘরে বসেই তৈরি করে নেয়া যায় এ ধরনের বুক সেলফ। বিভিন্ন মাপের চারকোনা খোপ দিয়ে তৈরি এই বুক সেলফে বইয়ের সাথে শোপিস, ছোট্ট গাছ দিয়েও সাজানো যায়।
দেয়ালের সাথে আটকানো থাকায় ঘরের জায়গাও দখল করে কম।
বুক সেলফ তৈরি করা যেতে পারে গাছের অবয়বকে মাথায় রেখেও। কাণ্ড, শাখা-প্রশাখা নিয়ে গড়ে ওঠা গাছের মতো করে ডিজাইন দিয়ে বুক সেলফেও শাখা-প্রশাখার আদলে তাকগুলো বানিয়ে নিলে এটি বাসার যেকোনো ঘরকে আকর্ষণীয় করে তুলতে পারে। এটি বাসার ড্রয়িংরুম বা স্টাডি- যেকোনো জায়গায় মানাবে।
টিকচিহ্নের মতো করে ডিজাইন দিয়েও তৈরি করা যেতে পারে ছোটখাটো ধরনের বুক সেলফ। এতে খুব বেশিসংখ্যক বই ধরবে না, কিন্তু ঘর সাজাতে এ ধরনের ডিজাইনের তুলনা নেই। ইউনিভার্সিটি পড়ুয়া ছেলেমেয়েদের ঘরে এ ধরনের বুক সেলফ বেশ উপযোগী। কারণ, তাদের প্রতি সেমিস্টারে হাতেগোনা কিছু বই কিনতে হয়, যা খুব সহজেই এই টিকচিহ্ন আকারের বুক সেলফে জায়গা হবে।
টিক-ট্যাক-টো গেমের বোর্ডের মতো করে তৈরি করে নিতে পারেন নিজের ঘরের বুক সেলফ। বানাতেও সময় কম লাগবে এবং বেশ ভালো পরিমাণ বই ও ছোট শোপিস দিয়ে খুব সুন্দর করে সাজিয়ে নিতে পারেন।
ঘরে বই পড়ার জন্য আলাদা একটি জায়গা বানাতে চাইলে এ রকম প্রশ্নবোধক চিহ্ন আকৃতির বুক সেলফ খুব কাজে দেবে। সেলফের প্রতিটি তাকে একেক রঙের বাতি দিয়েও যেকোনো বুক সেলফকে আরো আকর্ষণীয় করা যেতে পারে। আর শেলফটির ভিন্নধর্মী আকৃতির পেছনে আরেকটি কারণ হলো, সামনের অংশটুকুতে একটি বড় আকৃতির রিং, তাহলে তো কথাই নেই।


আরো সংবাদ

সকল