২০ নভেম্বর ২০১৯

প্রি য় জ ন প ঙ ক্তি মা লা

-

শফিকুল ইসলাম শফিক
শরতের বিকেলে

প্রতিপুষ্পের পরতে পরতে
সাজবে ধরা আজ তোমার হাতে,
শুনতে চাইলে শোনাবে গান
কোনো এক অবসর শরতের রাতে।
কোমল রোদের একটু ছোঁয়ায়
ফুল সাথে মিশাবে ধূপের গন্ধ,
এক চিলতে মেঘের আড়ি ভেঙে দিয়ে
প্রণয়ের স্নিগ্ধতায় কলুষতা হবে বন্ধ।
আজ নিরালায় ইচ্ছের আঁকিবুকি
নীলাচলে হারিয়ে যাওয়ার দিন,
তোমার নামে হোক স্রোতবহ নদী
ভালোবাসায় থেকো চির অমলিন।
কনইল, নওগাঁ

 


শামীমা সুলতানা
শরৎ তুমি

শরৎ তোমার স্নিগ্ধতায়
হারিয়ে যাই মন ভোলায়
মন খারাপের ব্যাধি যে
লুটিয়ে পড়ে কোন ধুলায়।
তোমার অমল ধবল মেঘে
পালতোলা ডিঙি নায়
মন যে আমার ছুটে চলে
তোমার সঙ্গে অজানায়।
চন্দ্রালোয়ে শিউলি ফোটে
আমার ছোট্ট আঙিনায়
তুমি যেনো সদ্যস্নাত
তরুণীর অপরূপ মহিমায়।

 


কবির কাঞ্চন
শরতের হাসি

শাপলা শালুক পদ্ম ফোটে
ভাদ্র-আশ্বিন এলে
সূয্যিমামা মেঘের সাথে
লুকোচুরি খেলে।
স্বপ্ন নিয়ে শরৎ আসে
ফুল পাখিদের গানে
সাদা মেঘের ভেলা চলে
দূর আকাশের পানে।
শিশির ভেজা সবুজ ঘাসে
সোনামাখা আলো
সেই আলোতে মুক্তো দেখে
লাগে কতো ভালো।
দিনের শেষে রাত্রিকালে
পূর্ণিমা চাঁদ হাসে
সবার মনে উদারতা
শরৎ নিয়ে আসে।

 


রুহুল আমিন রাকিব
শরৎ স্মৃতি

নদীর তীরে কাশের বনে
মন ছুটে যায় মন
ঠিক তখনই মনে পড়ে
কিশোর বেলার ক্ষণ।
বাড়ির পাশে ধরলা পাড়ে
ছিলো কাশের বন
বন্ধুরা সব ছুটে যেতাম
চাইতো যদি মন।
খই ফোটানো আকাশ যেনো
গাঁয়ের সাথে মিল
নদীর তীরে ভিড় করতো
ধবল বক আর চিল।
এসব দেখে বন্ধুরা সব
ফিরছি যখন বাড়ি
ঋতু রানী তখন যেন
পরে সাদা শাড়ি।
দুর্গাপুর, কুড়িগ্রাম

 

 

হাসান নাজমুল
অজস্র কথার ঢেউ

বুকের মাজারে নড়ে ওঠে অজস্র কথার ঢেউ,
বাতাসের মতো বয়ে চলে শুধু অজানা সীমান্তে,
অজান্তেই তীব্র ঝড় পাল্টে দেয় মনের মোহনা,
বরফের মতন জমানো কথাগুলো মিশে যায়Ñ
অশান্ত-উদ্দাম হাওয়ায়; আমিও হারিয়ে যাই
প্রতিকূল দিনের ভেতরÑহারিয়ে যাই দিগন্তে;
ফেরাতে চাই কবিতার মতন কোমল শব্দমালা;
প্রিয় শব্দমালা দেয় না ধরা বাক্য হয়ে, ফিরে আসি
কষ্টে হয় না বলা আর সেইসব কষ্ট-কথা।
প্রিয়জন-১৬১৬


আরো সংবাদ