১৬ জুন ২০১৯

লক্ষ্য এবার এশিয়ান সিটিজ দাবায়

-

মার্চে বাংলাদেশে হয়ে গেল এশিয়ান জোনাল দাবা। এই আসরে অবিশ্বাস্য রেজাল্ট বাংলাদেশের। চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন ফিদেমাস্টার ফাহাদ রহমান। এই শিরোপা তাকে এক লাফে এনে দিতে যাচ্ছে আন্তর্জাতিক মাস্টারের খেতাব। মোটামুটি সব চূড়ান্ত। বাকি এখন ফিদের প্রেসিডেন্সিয়াল বোর্ডে অনুমতির অপেক্ষা। এ ছাড়া মহিলা আন্তর্জাতিক মাস্টার হয়েছেন শারমিন সুলতানা শিরিন। তার এই অর্জনও ফিদের স্বীকৃতির অপেক্ষায়। একটি আসর আয়োজন করে দুই অর্জন বাংলাদেশের দাবা অঙ্গনে দারুণ সাড়া ফেলেছে। দাবাড়–দের মধ্যেও দারুণ চাঞ্চল্য। ফাহাদ অবশ্য এর আগে চট্টগ্রামের গ্র্যান্ডমাস্টার দাবায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন। কিন্তু কপাল মন্দ হওয়ায় সে আসরে তার আইএম নর্ম জোটেনি। আইএম নর্ম পেতে তার দরকার ছিল ৪০ শতাংশ বিদেশী দাবাড়–। তা তিনি প্রতিপক্ষ হিসেবে পাননি। তবে এখন দেশের দাবা সংশ্লিষ্টরা তাকিয়ে আছেন জুলাইয়ের এশিয়ান সিটিস দাবার দিকে। এই আসর থেকেও একাধিক নর্ম পেতে পারেন স্থানীয় দাবাড়–রা।
সর্বশেষ ২০১৭ সালে এশিয়ান সিটিজ দাবা হয়েছিল। তা ভারতে। এই আসরে ঢাকা সিটি দাবা দল তৃতীয় হয়েছিল। জিয়াউর রহমান, এনামুল হোসেন রাজীর, আবদুল্লাহ আল রাকিব কেউ অংশ নেননি এই টুর্নামেন্টে। ফলে শাকিল, সাগররা দলকে তিন নাম্বারের উপরে ওঠাতে পারেননি। ১৯৯০ সালে বাংলাদেশ শিরোপ জয় করেছিল এশিয়ান সিটিজ দাবায়। সেই টুর্নামেন্ট হয়েছিল সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইতে।। জিয়াউর রহমান, তাহমিদুর রহমান তৈয়বুর রহমানদের প্রতিনিধিত্ব ছিল সেই আসরে।
এবার এই প্রথম বাংলাদেশে বসতে যাচ্ছে সিটিজ দাবা। এতে সাধারণত বিভিন্ন সিটি যেমন ঢাকা সিটি, কলম্বো সিটি, দিল্লি সিটি এই নামে দলগুলো অংশ নেয়। যেহেতু বাংলাদেশ এবার স্বাগতিক, তাই তাদের সর্বোচ্চ চারটি দল অংশ নিতে পারবে। ফলে বাংলাদেশের অনেক দাবাড়–র সুযোগ হবে নিজেদের যোগ্যতা প্রমাণের। প্রতিপক্ষ দলে পর্যাপ্ত গ্র্যান্ডমাস্টার থাকলে এবং তাদের বিপক্ষে সাফল্য পেলে আইএম নর্ম বা জিএম নর্ম পেতে পারেন দাবাড়–রা।
এই টুর্নামেন্ট হওয়ার কথা ছিল জুলাইতে কক্সবাজারে। তা খরচ কমানোর জন্য। এখন তা এই পর্যটন নগরীর বদলে হবে ঢাকায়, জানান বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশন সেক্রেটারি সৈয়দ শাহাবুদ্দিন শামীম। বড় এই টুর্নামেন্ট আয়োজনের জন্য দরকার সরকারি অনুদান। ৬-৭ লাখ টাকাতো লাগবেই। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের কাছে এই অর্থ পাওয়া যাবে এমন নিশ্চয়তা কোথায়। গত বছর জর্জিয়ায় বিশ্বদাবা অলিম্পিয়াডে অংশ নিতে যাওয়ার সময় সরকারের কাছে টাকা চেয়ে আজো সেই টাকা পায়নি ফেডারেশন। এশিয়ান জোনাল দাবায় ক্ষেত্রেও তাই। এশিয়ান সিটিজ দাবায় বিদেশী কোন কোন দল অংশ নেবে তা অবশ্য এখনো চূড়ান্ত হয়নি।
বাংলাদেশী দাবাড়–দের নিজ দেশে আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে খেলার আরেকটি সুযোগ চট্টগ্রামের গ্র্যান্ডমাস্টার্স দাবায়। এই আসর এশিয়ান সিটিজ দাবার পরে অনুষ্ঠিত হবে। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়রের উদ্যোগে হয় এই টুর্নামেন্ট। মেয়র কাপ নামে হতে পারে এই গ্র্যান্ডমাস্টার টুর্নামেন্টটি।


আরো সংবাদ