১৯ জুলাই ২০১৯

যা ছিল সবই দিয়েছি

-

বিশ্বকাপের শেষ চারের খেলায় সর্বোচ্চ উজাড় করে দেয়ায় দাবি করেছেন ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি। বুধবার আইসিসির ১২তম টুর্নামেন্টের প্রথম সেমিফাইনালে পরাজয়ে ভারাক্রান্ত দলনায়ক এক টুইটার পোস্টে প্রানপ্রিয় ভক্তদের ধন্যবাদও জানান।
কোহলি বলেন, ‘প্রথমে ধন্যবাদ জানাচ্ছি ভক্তদের। সবচেয়ে বেশিসংখ্যক ভারতীয় ইংল্যান্ড সফর করেছেন প্রাণপ্রিয় দলকে সমর্থন দেয়ার জন্য। আমরা সত্যিই গর্বিত। ক্রিকেটারদের প্রত্যেকেই প্রচণ্ড ভালোবাসা জন্মেছে ভক্তদের প্রতি। তাদের মতো আমরা সবাই হতাশ। কিন্তু মনে রাখা প্রয়োজন যা ছিল তার সবটুকু আমরা উজাড় করে দিয়েছে।’
ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ২০১৯ সালের মেগা আসরের লো-স্কোরিং সেমিতে ১৮ রানের নাটকীয় পরাজয় হজম করেছে ভারত। জয়ের জন্য ২৪০ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে তারা ২২১-এ অলআউট। দুর্দান্ত বোলিং নৈপুণ্য প্রদর্শনের খেলায় জয়োৎসব নিশ্চিত করেছে নিউজিল্যান্ডের টানা দ্বিতীয় ফাইনালে প্রতিনিধিত্বের গৌরব।
সেমিফাইনালে অপ্রত্যাশিত পরাজয়ে হতাশার কালো মেঘে ঢাকা পড়েছে ভারতীয় ক্রিকেটাঙ্গনের আকাশ। চরম দুঃস্বপ্ন সাথে করে ঘরে ফিরেছেন ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে উপস্থিত দলটির অসংখ্য ভক্ত। অন্য দিকে দেশের মাটিতে টিভি সেটের সামনে বসে খেলা উপভোগকারী ক্রিকেট পাগল ভারতীয়দের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ নিশ্চিত করেছে কোহলি অ্যান্ড কোংয়ের হার। রাউন্ড রবিন লিগের ৯ খেলার ৭টিতেই জয়োৎসবে শীর্ষ দল হিসেবে শেষ চার-এ প্রতিনিধিত্ব করেছে ভারত। ফেবারিট হিসেবে সেমিতে অংশগ্রহণের পরও দলটি হেরে গেছে নিউজিল্যান্ডের কাছে।
হতাশ কোহলি ও ক্ষুব্ধ ভক্তদের পাশে দাঁড়াতে এগিয়ে এসেছেন ভারতীয় দলের সাবেক-বর্তমান ক্রিকেটারদের অনেকেই। তারা প্রশংসাও করেছেন পুরো টুর্নামেন্টে দল হিসেবে পারফরম্যান্সের। ইনজুরি নিয়ে দেশে ফেরা ওপেনার শেখর ধাওয়ান এক টুইটার পোস্টে অভিনন্দন জানান ফাইনালে ওঠা নিউজিল্যান্ডকে। তিনি লেখেন, ‘আমরা লড়াই করেছি। ক্রিকেটারদের ফাইটিং মনোভবে আমি গর্বিত। অভিনন্দন নিউজিল্যান্ডকে ফাইনালে ওঠার জন্য। সেমিফাইনালের পরাজয়ে হৃদয় ভেঙে যাওয়ার কথা খোলামেলাভাবেই প্রকাশ করেন ব্যাটিং জিনিয়াস শচিন টেন্ডুলকার। ব্যক্তিগত টুইটার অ্যাকাউন্টের পোস্টে শচিন বলেন,‘ প্রত্যেক ভারতীয় ভক্তের মতো আমার হৃদয় ভেঙেছে আজকের পরাজয়। জাদেজা ও ধোনির লড়াকু নৈপুণ্য ছিল দেখার মতো। তবে অসাধারণ খেলেছে নিউজিল্যান্ড। তাদেরকে অভিনন্দন ও ফাইনালের জন্য শুভকামনা। কেন উইলিয়ামসনের অধিনায়কত্ব মূল পার্থক্য গড়ে দিয়েছে ২০১৯ সালের বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনালের।’

 

 


আরো সংবাদ