১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯

আরো জয় চায় মহিলা হকি দল

-

১৫ বছরের স্বপ্ন লালন করে আসছেন মহিলা হকি দলের প্রধান কোচ তারিকুজ্জামান নান্নু। অথচ সিঙ্গাপুরে প্রথম জয়ের পর সেভাবে উদযাপন করতে পারেননি তিনি। ব্যস্ত ছিলেন ইনজুরড থাকা সাদিয়াকে নিয়ে। খেলা শেষ হওয়ার সাথে সাথে সাদিয়াকে নিয়ে দৌড়াতে হয় হাসপাতালে। থুতনিতে দুই সেলাই দেয়ার পর তাকে নিয়ে আসেন হোটেলে।
এয়ার এশিয়া ওমেন্স জুনিয়র এএইচএফ কাপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে ২-০ গোলে হারিয়ে প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক জয় তুলে নেয় রিতু বাহিনী। প্রথম ম্যাচে হারের পর ভুলগুলো শুধরে দ্বিতীয় ম্যাচে নেমেছিল বাংলাদেশের মেয়েরা। প্রথম কোয়ার্টারে আধিপত্য ধরে রাখলেও গোল আসে দ্বিতীয় কোয়ার্টারে। ২৭ মিনিটে পেনাল্টি কর্নার থেকে গোল করে দলকে লিড এনে দেন তারিন আক্তার খুশি। ৫৮ মিনিটে আবারো পিসি থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ফারদিয়া আক্তার রাত্রি। শতাধিক প্রবাসী বাংলাদেশী সেংক্যাং স্টেডিয়ামে বসে এই ম্যাচ উপভোগ করেন ও মেয়েদের সমর্থন দেন। গতকাল কোনো ম্যাচ ছিল না। আজ হংকংয়ের বিপক্ষে লড়বে বাংলাদেশ। জয়ের প্রত্যাশা নিয়েই মাঠে নামবে রিতু-স্বর্ণা-সাদিয়ারা।
সিঙ্গাপুর থেকে নান্নু জানান, ‘বাংলাদেশ যখন প্রথম গোল দিল তখন চোখটা চিকচিক করে উঠছিল। লিড নেয়ার পরও আশঙ্কা ছিল। শেষ দিকে যখন আরো একটি গোল হলো এবং খেলার শেষ বাঁশি বাজল তখন মনের অজান্তেই চোখের পানি ঝরতে লাগল। তবে জয়টা সেভাবে উদযাপন হয়নি। দেশে থাকতেই সাদিয়ার থুতনিতে দুটো সেলাই লেগেছিল। সেটি কাটিয়ে সিঙ্গাপুর এসেছিলাম। খেলার সময় আবারো সে ব্যথা পেল। ফিজিও কোনোরকম ব্যান্ডেজ করে দিলে আবারো মাঠে নামে। রক্ত পড়ায় জয়ের পরপরই তাকে নিয়ে হাসপাতালে যেতে হয়। এখানে চিকিৎসা অনেক ব্যয়বহুল। সব খরচা সাঈদ ভাই দিলেন। আাগামঅকালও (আজ) হংকংয়ের বিপক্ষে জয়ের আশা করছি। সবার দোয়া চাই।’
সহকারী কোচ হেদায়েতুল ইসলাম রাজীব জানান, ‘জয়ের আনন্দে উচ্ছ্বসিত পুরো দল। তারা বুঝে গেছে জয় পেলে কেমন লাগে। নিজেরাই আগ্রহী হয়ে উঠেছে খেলার জন্য। এটি একটি পজিটিভ দিক। সেটিকে সামনে রেখে হংকংয়ের বিপক্ষে লড়বে মেয়েরা। আশা করছি তারা ভালো একটা রেজাল্ট করবে।’


আরো সংবাদ