২৬ মার্চ ২০১৯

‘ভারতের মুসলমানরা যেন ভাড়াটিয়া’

ভারতের আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের যে তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে, তাতে পবিত্র রমযান মাসেও অনেক এলাকাতেই ভোটের তারিখ পড়েছে। এ নিয়ে বিজেপি ছাড়া বাকি দলগুলো সরকারকে দোষারোপ করছে। এরই প্রেক্ষিতে দেশটির একজন নেতা মন্তব্য করেছেন, ভারতের মুসলমান যেন ভাড়াটিয়া।

ভারতের সমাজবাদী পার্টির নেতা আজম খান বলেন, মুসলমানদের সাথে যেমন আচরণ করা হয় তা দেখে মনে হয় তারা এদেশে কেবলই ভাড়াটিয়া। রমজান মাসে ভোট হওয়া নিয়ে তার প্রতিক্রিয়া চাওয়া হলে এ মন্তব্য করেন তিনি।

সংবাদসংস্থা এএনআইকে আজম খান বলেন, একটা সময় আরএসএস বলত তারা মুসলিমদের সেকেন্ড ক্লাস সিটিজেন বানিয়ে ছাড়বই৷ কিন্তু এখন বলতেই হচ্ছে, দেশে মুসলমানদের অবস্থা ভাড়াটিয়ার মতোই৷

রমজান মাসে ভোটের তারিখ প্রসঙ্গে আজম খান আরো বলেন, ভোটের দিন ঘোষণার পর তা পরিবর্তন করা সম্ভব নয়৷ কিন্তু দিন ঘোষণার আগে নির্বাচন কমিশন নিশ্চয়ই বিষয়টি জানত।

বিজেপির রাজনীতি নিয়েও তিনি মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, এই প্রথমবার কেউ সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের নামে ভোট চাইতে যাবে৷ তার মানে সেনাদের জীবনের ওপর ভোট চাওয়া হচ্ছে৷ সীমান্ত নিয়ে বাণিজ্য করা হয়েছে, রক্ত নিয়ে বাণিজ্য করা হয়েছে, উর্দির ( সৈনিকদের ইউনিফর্ম) বাণিজ্য করা হয়েছে’

অন্যদিকে ভারত অধিকৃত জম্মু-কাশ্মিরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লাহ গত সোমবার এক বিস্ফোরক মন্তব্য করেন৷ তিনি দাবি করেন, বালাকোটে বিমানবাহিনীর অভিযান আসলে একটি রাজনৈতিক চাল। লোকসভা ভোটকে লক্ষ্য করে এই অভিযান চালানো হয়েছে৷ তিনি ইঙ্গিত করেন, একটি বিশেষ রাজনৈতিক দল যাতে ভোটে সুবিধা পায় সেই জন্য এই অভিযান চালানো হয়েছে।

এ সময় তিনি পাকিস্তানের প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, ভারতের কৃতজ্ঞ থাকা উচিত৷ ভারতের বিমানবাহিনীর পাইলট বেঁচে গিয়েছেন এবং সম্মানের সঙ্গে দেশে ফিরেছেন৷ তবে পাকিস্তানকের যুদ্ধবিমানের জবাব দিতে গিয়ে ভারতের একটি যুদ্ধবিমান ধ্বংস হয়ে যাওয়ায় দুঃখপ্রকাশ করেন ফারুক আবদুল্লাহ।

তিনি বলেন, বালাকোটে অভিযান চালানো হয়েছে, কারণ সামনেই নির্বাচন৷ কিন্তু একটি করতে গিয়ে আমরা কোটি কোটি টাকা মূল্যের একটি যুদ্ধবিমান হারিয়েছি।

আরো পড়ুন : ধৈর্য ধরে মুসলিমদের আরো শত বছর টিকে থাকতে হবে : মাহমুদ মাদানি
নয়া দিগন্ত অনলাইন, ১৩ মার্চ ২০১৯, ১২:৫৪

ভারতের প্রখ্যাত আলেম মাওলানা মাহমুদ আসাদ মাদানি বলেছেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে মুসলমানদের আরো ধৈর্য ধরতে হবে। ভারতের হায়দরাবাদে জমিয়তে উলামার বার্ষিক সম্মেলনে দেয়া এক বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। 

মাহমুদ মাদানি বলেন, এ দলটি ১০০ বছর পূর্ণ করতে চলছে। ভারতবর্ষে ইসলাম আরো উদ্ভাসিত হবে, আরো বেশি প্রভাব বিস্তার করবে, ১৯১৯ সালে প্রতিষ্ঠার সময় জমিয়তে উলামার লক্ষ্য এটাই ছিল। বর্তমান পরিস্থিতিতে তরুণ প্রজন্মের কাছে এ বিষয়টি আরো ভালোভাবে পৌঁছে দেয়া প্রয়োজন। তাহলে তারা শক্তভাবে পরিস্থিতির মোকাবিলা করে আরো একশ বছর এগিয়ে যেতে পারবেন।

হায়দরাবাদে অনুষ্ঠিত এ সম্মেলনে সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন মাওলানা শাব্বির আহমদ।

মাওলানা মাহমুদ মাদানি গত পাঁচ বছরে মুসলমানদের সহনশীলতার প্রশংসা করে এটি অব্যাহত রাখার কথা বলেন। তিনি এ সময় বলেন, তাদের রাজনৈতিক বক্তব্য এড়িয়ে যাওয়া উচিত, কারণ এটি অনেক ক্ষেত্রে ক্ষতির কারণ হতে পারে।

মুসলিম যুবকদের অস্থিরতার ব্যাপারে উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি বলেন, এটি খুবই স্পর্শকাতর ইস্যু। তাই এ ব্যাপারে আরো সাবধান হতে হবে। এ সময় বিপথগামী মেয়েদের ব্যাপারে তিনি বলেন, যাদের মধ্যে সঠিক ইসলামী শিক্ষা নেই, তারাই বিপথগামী হচ্ছে। সূত্র : সিয়াসাত ডেইলি


আরো সংবাদ