১৯ এপ্রিল ২০১৯

মোদির হেলিকপ্টারে রহস্যজনক বাক্স, ভারতজুড়ে তোলপাড়

মোদির হেলিকপ্টারে রহস্যজনক বাক্স, ভারতজুড়ে তোলপাড় - সংগৃহীত

ভারতে নির্বাচন নিয়ে যখন নানা হিসাব চলছে, তখন তাতে যোগ হলো নতুন বাক্স-রহস্য!

অভিযোগ এ বারে সরাসরি দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে। সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়েছে মিনিটখানেকের ছবি। হেলিকপ্টারের ডানা তখনও বনবন করে ঘুরছে। প্রধানমন্ত্রীর কনভয়ের কালো গাড়িগুলোও দিব্যি দাঁড়িয়ে। এসপিজি-র কর্মীরা ঘিরে রেখেছেন গোটা চত্বর। তার মধ্যেই কনভয়ের থেকে দূরে দেয়াল ঘেঁষে দাঁড়ানো একটি সাদা ইনোভা। সেটি কনভয়ের অঙ্গ নয়।

প্রাথমিক দৃষ্টিতে নজর পড়ে না সে গাড়ির দিকে। যদি না হেলিকপ্টারের সামনে থেকে একটি ভারী কালো বাক্স নিয়ে তার দিকে ছুট দিতেন দু’জন। বাক্স ইনোভায় রাখতেই সে গাড়ি ছুটল তীব্র গতিতে। কী ছিল বাক্সে? কী করেই বা প্রধানমন্ত্রীর কনভয়ের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা বলয়ে বাইরের গাড়ি এলো? বাক্সে কী-ই বা পাচার হলো?

ঘটনাটি সদ্য গত কালই নজরে এসেছে কর্নাটক কংগ্রেসের। রাজ্য কংগ্রেস সভাপতি দীনেশ গুন্ডু রাও ভিডিওর অংশটি টুইট করে অভিযোগ করেছেন, ‘‘একটি রহস্যজনক বাক্স শনিবার চিত্রদুর্গে প্রধানমন্ত্রীর হেলিকপ্টার থেকে নেমেছে। তার পরেই সেটিকে একটি বেসরকারি গাড়িতে চাপিয়ে পাচার করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের খতিয়ে দেখা উচিত, এই বাক্সে কী ছিল? গাড়িটাই বা কার?’’

রোববার দুপুরেও দিল্লিতে এআইসিসি দফতরে এ নিয়ে সাংবাদিক বৈঠক করে কংগ্রেস। সেখানে আনন্দ শর্মা অভিযোগ করেন, ‘‘ভোটের সময় কোনও মন্ত্রী, কোনও নেতা এমন কিছু নিয়ে যেতে পারেন না, যাতে অবাধ নির্বাচনে ব্যাঘাত ঘটতে পারে। আর এটি তো খোদ প্রধানমন্ত্রীর হেলিকপ্টার। যেখানে এসপিজি-র পরীক্ষা ছাড়া কিছু যাওয়ার উপায় নেই। এই বাক্সে যদি নগদ টাকা না থাকে, তা হলে সেটি এসিপিজি-ই জানাক। সে বাক্সে কী রাখা হয়েছিল, কেনই বা কনভয়ের বাইরে একটি গাড়িতে তা তুলিয়ে উধাও করা হলো? কমিশনে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ করা হয়েছে। কমিশন তদন্ত করুক।’’

ভোটের মধ্যে গত কয়েক দিন ধরে রাজ্যে রাজ্যে আয়কর হানা চলছে। কংগ্রেসের অভিযোগ, বেছে বেছে বিরোধী নেতাদের বাড়ি-অফিসেই এই হানা হচ্ছে। অথচ বিজেপি বিপুল অর্থ খরচ করছে। তিন বছরে শুধু প্রচারেই বিজেপি ৪ হাজার কোটি রুপির বেশি খরচ করেছে। নির্বাচনী বন্ডের সিংহভাগ তারা পেয়েছে। সেটি ‘স্কিম’-এর বদলে ‘স্ক্যাম’ হয়ে গিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর হেলিকপ্টার থেকে বাক্সে কী পাচার হচ্ছে, তা দেশবাসীর জানার অধিকার আছে।

ঘটনাচক্রে কংগ্রেসের সংবাদ সম্মেলনের সময় বিজেপি দফতরেও চলছিল সংবাদ সম্মেলন। সেখানে ছিলেন দলের মুখপাত্র ও এমপি জি ভি এল নরসিংহ রাও। তাকে প্রশ্ন করা হলে সরাসরি জবাব এড়িয়ে তিনি উল্টে অভিযোগ করলেন, ‘‘কোটি কোটি টাকার দুর্নীতি হয় তুঘলক রোডে। রাহুল নিজে চুরি করে অন্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন।’’

ঘটনা হলো, সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ উঠলে ক’দিন আগেও তা নিয়ে তেড়েফুঁড়ে উঠত বিজেপি। এখন যথারীতি সরকারের আর এক ‘সূত্র’-র আবির্ভাব হলো! যে ‘সূত্র’ বলল, কংগ্রেস শনিবারের ছবি বললেও প্রধানমন্ত্রী চিত্রদুর্গে সভা করেছেন এক সপ্তাহ আগে। বাক্সে এসপিজির নিরাপত্তার সরঞ্জাম ছিল। সভাস্থলে মোদী পৌঁছনোর আগেই তা পাঠানোর প্রয়োজন ছিল। এসপিজিই বাক্সটি অন্য গাড়িতে নিয়ে গিয়েছে। অন্য এজেন্সিকেও তা জানানো ছিল।


আরো সংবাদ

চাঁদাবাজ মাস্তান ও সন্ত্রাসীদের দখলে দেশের নৌপথ মোদির হেলিকপ্টারে তল্লাশি করায় মুসলিম কর্মকর্তা বরখাস্ত আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ ও উপদেষ্টা পরিষদের যৌথ সভা আজ ভোটগ্রহণের মধ্যেই বিকল হচ্ছে ইভিএম, মোদির আসন কমার আভাস বিদ্যুৎ সংযোগ না পেয়েও বকেয়া বিলের মামলায় কারাগারে মতিন মিয়া বিয়ের পোশাক পরেই ভোট দিলেন কাশ্মীরি নবদম্পতি রাবি শিক্ষক সমিতির সভাপতিসহ ৫টি পদে বিএনপিপন্থীদের জয় ঘোষিত পাকিস্তান দল নিয়ে যা বলল আফ্রিদি অনিশ্চয়তা কাটিয়ে বিশ্বকাপ দলে জায়গা পেলেন হাশিম আমলা ইরানি সেনাবাহিনী আরব দেশগুলোর জন্য হুমকি নয় : রুহানি শেয়ারের অব্যাহত দরপতনে বিরাট ক্ষতির মুখে বহু ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী

সকল




rize escort bayan didim escort bayan kemer escort bayan alanya escort bayan manavgat escort bayan fethiye escort bayan izmit escort bayan bodrum escort bayan ordu escort bayan cankiri escort bayan osmaniye escort bayan