২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

 কাশ্মিরিদের মিছিলে গুলি চালালো ভারতীয় বাহিনী

প্রতীকী ছবি। - ছবি : সংগৃহীত

ভারত অধিকৃত কাশ্মিরে পবিত্র মুহাররম মাসের তাজিয়া মিছিলে বাধা দিয়েছে ভারতীয় বাহিনী। ১০ সেপ্টেম্বর পবিত্র আশুরা উপলক্ষে বের করা একটি মিছিলে চালানো ছররা গুলিতে কয়েকজন আহত হওয়ারও খবর এসেছে।

এক্সপ্রেস ট্রিবিউন উর্দূ জানায়, ভূ-স্বর্গ খ্যাত উপত্যকাটির স্বায়ত্তশাসন ও বিশেষ মর্যাদা বাতিলের ৩৫ দিন পরও অবরুদ্ধ অবস্থায় রয়েছেন কাশ্মিরের স্থায়ী বাসিন্দারা। 

১০ মুহাররম আশুরা নিয়ে এমন অনিশ্চিত পরিস্থিতির মধ্যেও শ্রীনগরে ছোটআকারে একটি তাজিয়া মিছিল বের হলে তা ছত্রভঙ্গ করে দেয় ভারতীয় বাহিনী। এসময় মুসল্লিদের ওপর টিয়ারশেলের পাশাপাশি পেলেট গান বা ছররা গুলিও ছোড়ে তারা। এতে তাজিয়া মিছিলে অংশ নেয়া বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

গত ৫ আগস্ট কাশ্মিরের স্বায়ত্তশাসন বাতিলের পর থেকে একমাসেরও বেশি সময়ধরে উপত্যকাটিতে কারফিউ চলছে। কারফিউ চলাকালীন বিভিন্ন জেলায় স্বাধীনতাকামীদের দমাতে গ্রেফতার অভিযান চালাচ্ছে ভারতীয় বাহিনী।

এর আগে অবরুদ্ধ জম্মু-কাশ্মিরে গত এক মাসে পেলেট গান বা ছররা গুলিতে ৩৬ জন আহত হওয়ার খবর স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে স্বীকার করা হয়েছিল। ছররা গুলি লেগে চারজন অন্ধ হয়েছেন বলেও জানিয়েছে জম্মু-কাশ্মিরে কর্তৃপক্ষের গভর্নর সত্য পাল মালিক।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালসহ আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো ভারত সরকারকে অবিলম্বে পেলেট গান (ছররা গুলি) ব্যবহার বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে।

কাশ্মিরে নির্যাতন বন্ধ করুন, ভারতকে যুক্তরাষ্ট্র

ভারত শাসিত কাশ্মিরে ব্যাপক গ্রেফতার ও নির্যাতন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে অবিলম্বে তা বন্ধ করতে ভারতের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। কাশ্মিরে ভারতীয় বাহিনী মানবাধিকার লংঘন করছে বলেও দেশটির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়।

রোববার মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মরগান ওরটাগুস এক বিবৃতিতে এ উদ্বেগ প্রকাশ করেন। বিবৃতিতে তিনি বলেন, কাশ্মিরে ব্যবসায়ী ও স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদের গণগ্রেফতার ও সাধারণ জনগণের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র উদ্বিগ্ন।

কাশ্মিরে দ্রুত যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু করার আহ্বান জানিয়ে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওই বিবৃতিতে বলা হয়, কাশ্মিরে ইন্টারনেট ও মোবাইল ফোন পরিষেবা বন্ধ করার বিষয়েও আমরা উদ্বিগ্ন। স্থানীয় নেতৃবৃন্দের সাথে আলোচনার মাধ্যমে যত দ্রুত সম্ভব কাশ্মিরকে নিরাপদ ঘোষণা করতে ভারত সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয় বিবৃতিতে।

ভারত সরকার আটককৃতদের সংখ্যা নির্দিষ্ট করে না বললেও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, বিগত একমাসে জম্মু-কাশ্মিরে গ্রেফতারকৃতদের সংখ্যা ৫ হাজারের বেশি ছাড়িয়ে গেছে।

ওআইসিসহ আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থার পর্যবেক্ষণ মতে, নরেন্দ্র মোদির হিন্দুত্ববাদী বিজেপির সরকারের নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীর অঞ্চলটি এ মুহূর্তে বিশ্বের সবচেয়ে বড় কারাগারে পরিণত হয়েছে।


আরো সংবাদ