২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

প্রতিটি অনুপ্রশেকারীকে আসাম থেকে বের করে দেয়া হবে : অমিত শাহ

ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ - সংগৃহীত

আসামের চূড়ান্ত নাগরিক তালিকায় নাম না থাকা ১৯ লাখেরও বেশি মানুষের প্রত্যেককে এক এক করে দেশছাড়া করার হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। রোববার আসামের গুয়াহাটিতে এমন হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি। তার ভাষায়, ‘প্রতিটি অবৈধ অনুপ্রবেশকারীকে আসাম থেকে বের করে দেয়া হবে।’

অমিত শাহ বলেন,‘জাতীয় নাগরিকপঞ্জি নিয়ে অনেকে অনেক রকম প্রশ্ন তুলেছেন। আমি স্পষ্টভাবে বলতে চাই, ভারত সরকার, একজন অবৈধ অনুপ্রবেশকারীকেও এদেশে থাকতে দেবে না। এটা আমাদের প্রতিশ্রুতি।’

ভারতের উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলো থেকে ভারতীয় সংবিধানের ৩৭১ অনুচ্ছেদ বাতিল করা হবে না বলেও জানান তিনি।

জম্মু-কাশ্মিরের বিশেষ মর্যাদা বিলুপ্ত করার পর দেশটির উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলোতেও ৩৭১ অনুচ্ছেদ নিয়ে আশঙ্কা দেখা দেয়। অমিত শাহ বলেন,‘বিরোধীরা কেবল কাশ্মির নিয়ে প্রতিবাদই জানাননি, পরে ৩৭১ অনুচ্ছেদও লোপ পাবে বলে প্রচারও চালিয়েছেন। উত্তর-পূর্বকে ভুল বোঝানোর চেষ্টা চলছে। কাশ্মিরের বিশেষ মর্যাদা দেয়া ৩৭০ অনুচ্ছেদ ছিল অস্থায়ী অনুচ্ছেদ। কিন্তু ৩৭১ স্থায়ী অনুচ্ছেদ। আট রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে নিশ্চিন্ত করছি, ৩৭১এ থেকে জে পর্যন্ত সব ধারা বজায় থাকবে। যারা উত্তর-পূর্বে অশান্তি চায়, তারাই এই প্রচার চালিয়ে ভেদাভেদ তৈরি করতে চাইছে।

গত বছর এনআরসি-র চূড়ান্ত খসড়া প্রকাশের পরে প্রতিবাদ শুরু হয় আসামে, বাংলায়। তখনই এনআরসিকে পূর্ণ সমর্থন জানিয়ে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ বলেছিলেন, নাম বাদ পড়া চল্লিশ লাখ মানুষ অনুপ্রবেশকারী। তথ্যবিভ্রাট সামাল দিতে পরে দল বিস্তর চেষ্টা করলেও অমিত শাহর মুখে ‘অনুপ্রবেশকারী’ তকমা পেয়ে ক্ষিপ্ত ছিলেন খসড়া তালিকা থেকে বাদ পড়ারা। এ বছর ৩১ অগস্ট যখন চূড়ান্ত এনআরসি থেকে ১৯ লাখ মানুষের নাম বাদ পড়ে তখন থেকে ফের বিরোধীরা প্রশ্ন তুলছেন, কোথায় গেলেন অমিত শাহর হিসেবে থাকা বাকি ২১ লাখ অনুপ্রবেশকারী?

ভারতে টারনা দ্বিতীয়বার বিজেপি ক্ষমতায় আসার পর অমিত শাহ হয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে এই প্রথম এনআরসি-পরবর্তী আসামে পা রাখলেন তিনি। বিশাল সংখ্যক হিন্দু এনআরসি থেকে বাদ পড়ায় ইতোমধ্যে তার দলও রাজ্যে এনআরসির তীব্র সমালোচক হয়ে উঠেছে। তাদের ক্ষোভ দমনে অমিত শাহ বলেন,‘আশ্বস্ত করছি কোনো অনুপ্রবেশকারীকে ভারত সরকার আসামে থাকতে দেবে না।’


আরো সংবাদ