২২ নভেম্বর ২০১৯

নয়াদিল্লিতে পুলিশের বিক্ষোভ

ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে অবস্থিত দেশটির পুলিশের সদর দফতরে বিক্ষোভ শুরু করেছে হাজার হাজার পুলিশ সদস্য। গতকাল মঙ্গলবার এক টুইট বার্তায় ইন্ডিয়ান পুলিশ সার্ভিস (আইপিএস) দিল্লিতে পুলিশের এই বিক্ষোভে সমর্থন জানিয়ে বলেছে, পুলিশ সদস্যদের এই বিক্ষোভে সারা দেশের পুলিশ কর্মকর্তাদের সমর্থন রয়েছে।

গত শনিবার নয়া দিল্লি তিস হাজারি আদালত চত্বরে আইনজীবীদের সাথে পুলিশ সদস্যদের সংঘর্ষ হয়। এতে অন্তত ২০ পুলিশ সদস্য ও আট আইনজীবী আহত হন। এ ছাড়া ভাঙচুর করা হয় কমপক্ষে ২০টি গাড়ি। এই সংঘর্ষের প্রতিবাদে আইনজীবীদের বিচারের দাবিতে মঙ্গলবার নয়া দিল্লিতে সদর দফতরে ব্যাপক বিক্ষোভ শুরু করেন পুলিশ সদস্যরা। দিল্লি সাকেত জেলা আদালতে এক পুলিশ সদস্যের সাথে একদল আইনজীবীর সংঘর্ষের পর তিস হাজারিতে পুলিশ-আইনজীবী সংঘর্ষ বাধে।

নয়াদিল্লিতে বিক্ষোভরত পুলিশ সদস্যদের প্রতি সমর্থন জানিয়ে ইন্ডিয়ান পুলিশ সার্ভিস টুইট করেছে। এতে বলা হয়েছে, সারা দেশের পুলিশ কর্মকর্তারা দিল্লির বিক্ষোভরত পুলিশ সদস্যদের প্রতি সমর্থন জানাচ্ছে ইন্ডিয়ান পুলিশ সার্ভিস।

টুইটে আরো বলা হয়েছে, পুলিশ এবং আইনজীবীদের মধ্যে সঙ্ঘাত অনাকাঙ্খিত। সরকারি সংস্থা হিসেবে প্রত্যেকের ভারসাম্য বজায় রাখা উচিত। সংঘর্ষের সময় তারা শারীরিক নিপীড়ন ও অপমানের শিকার হয়েছেন; পুরো দেশের পুলিশ কর্মকর্তা ও সদস্যরা তাদের পাশে আছেন। যেকোনো পক্ষের আইন ভাঙার চেষ্টার নিন্দা জানাচ্ছে আইপিএস।

রাস্তায় বিক্ষোভরত পুলিশ সদস্যদের সামনে উপস্থিত হয়ে দিল্লির পুলিশ কমিশনার আমুলিয়া পটনায়েক বলেন, আমাদের সুশৃঙ্খল বাহিনীর মতো আচরণ করতে হবে। আমরা যেন আইন মেনে চলি। আর এটা সরকার এবং জনগণ আমাদের কাছে প্রত্যাশা করে। এটা আমাদের বড় দায়িত্ব। আমি আপনাদের কাজে ফেরার আহ্বান জানাচ্ছি। কিন্তু এ আহ্বানে সাড়া দেয়নি বিক্ষোভকারীরা। পরে পুলিশ কমিশনার আমুলিয়া পটনায়েক পুলিশ সদর দফতর থেকে চলে যান। দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় পুলিশের নজিরবিহীন এই উত্তেজনা থামানোর দায়িত্ব দিয়েছে নয়া দিল্লির লেফটেন্যান্ট গভর্নর অনিল বাইজালকে।

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে তিনি দিল্লি পুলিশের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সাথে জরুরি বৈঠকে বসেন। দিল্লি বার অ্যাসোসিয়েশন তিস হাজারি আদালত চত্বরে অনাকাঙ্খিত ওই ঘটনার নিন্দা জানিয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, তদন্তে আইনজীবীদের বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। এনডিটিভি।


আরো সংবাদ