২৩ নভেম্বর ২০১৯

খয়রাতির ৫ একর জমি মুসলামানদের দরকার নেই, ক্ষোভ ঝাড়লেন ওয়াইসি

অযোধ্যায় হবে রাম মন্দির। পৃথক জমিতে হবে মসজিদ। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে রাগে ফেটে পড়লেন এআইএমআইএম প্রধান আসাউদ্দিন ওয়াইসি। অযোধ্যা রায় প্রসঙ্গে তার স্পষ্ট জবাব, ‘শীর্ষ আদলত সর্বময় কিন্তু অভ্রান্ত নয়।’

ওয়াইসির কথায়, ‘এই রায়ে সন্তুষ্ট নই। শীর্ষ আদলত সর্বময় কিন্তু অভ্রান্ত নয়। আমাদের সংবিধানের প্রতি পূর্ণ আস্থা রয়েছে। আমাদের পাঁচ একর জমি দান করার কোনও প্রয়োজন নেই। মুসলমানদের সেই দান প্রত্যাখ্যান করা উচিত।’

ওয়াইসির দাবি, এমনি মানুষের কাছে চাইলেই মুসলিমরা ৫ একর পেয়ে যাবে। সরকারের খয়রাতির প্রয়োজন নেই। হায়দরাবাদের এই সংসদ সদস্যের বক্তব্য, আমরা আমাদের আইনি অধিকারের জন্য লড়ছি। ভারতের মুসলমানদের এতটা খারাপ দিনও আসেনি যে খয়রাতির জমি নিতে হবে। আমরা যদি এভাবেই ভিক্ষা করতে থাকি তাহলে তাহলে এগোতে পারব না। মুসলিম বোর্ড কি সিদ্ধান্ত নেবে সেটা তাদের সিদ্ধান্ত। আমার ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত আমাদের এই ৫ একরের প্রস্তাব খারিজ করা উচিত।

এদিনই সুপ্রিম কোর্ট রায়ে জানিয়েছে, অযোধ্যার বিতর্কিত জমিতে রামমন্দির হবে। বিকল্প পাঁচ একর জমি পাবে মুসলিমদের পক্ষের সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড। যা ভারতের সর্বকালের ইতিহাসে ঐতিহাসিক রায় বলে গণ্য হচ্ছে।

প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ-এর নেতৃত্বে শীর্ষ আদালতের পাঁচ বিচারপতির সাংবিধানিক বেঞ্চ শনিবার এই রায় দিয়েছে। সর্বসম্মতিক্রমে এই রায় বলে জানিয়েছেন প্রধান বিচারপতি। কেন্দ্রকে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ, আগামী তিন মাসের মধ্যে পরিকল্পনা করে ট্রাস্ট গঠনের মাধ্যমে মন্দির নির্মাণের কাজ শুরু করতে হবে।

২০১০ সালে এলাহাবাদ হাইকোর্ট রায় দিয়ে জানিয়েছিল, অযোধ্যায় বিতর্কিত ২.৭৭ একর জমি সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড, নির্মোহী আখড়া ও রামলালা বিরাজমানের মধ্যে সমান ভাবে ভাগ করতে হবে। এ রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে ১৪টি আবেদনপত্র জমা পড়ে।

ওয়াইসির বক্তব্য, ‘হাইকোর্টের রায়ে বাস্তব বিচারে রূপায়ণ করা যেত না। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের রায় আমরা মানতে পারছি না।’

সুপ্রিম কোর্টের অযোধ্যা রায় নিয়ে ‘সন্তুষ্ট নয়’ সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড। পরবর্তী পদক্ষেপ নিয়ে ভাবচিন্তা করা হবে বলে জানানো হয়েছে সংগঠনের তরফে।

আদালতে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের তরফে প্রতিনিধিত্ব করা জেড জিলানির কথায়, ‘আমরা সুপ্রিম কোর্টের রায়কে সম্মান করি। তবে, অযোধ্যা মামলার রায়ে আমরা সন্তুষ্ট নই। পরবর্তী পদক্ষেপ হিসাবে এই রায় পুনর্বিবেচনার জন্য আবেদন করবো।’ যা সমর্থন করেছেন এআইএমআইএম প্রধান আসাউদ্দিন ওয়াইসি। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।


আরো সংবাদ