২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০

শিশু ধর্ষণকারীদের প্রাণভিক্ষার অধিকারের বিপক্ষে ভারতের রাষ্ট্রপতি

রামনাথ কোভিন্দ - ছবি : সংগৃহীত

হায়দরাবাদ ধর্ষণকাণ্ড ও চার অভিযুক্তের ‘এনকাউন্টারে’ ‍মৃত্যুর ঘটনায় উত্তাল ভারত। এই পরিস্থিতিতে শিশু ধর্ষকদের জন্য আরো কঠোর হওয়ার বার্তা দিলেন দেশটির রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। তিনি বলেন, পকসো আইনে দোষীদের প্রাণভিক্ষার আবেদন করার অনুমতি দেয়াই উচিত নয়।

রাজস্থানের একটি ধর্মীয় সংগঠন ব্রহ্মকুমারীর সভায় যোগ দিয়েছিলেন রাষ্ট্রপতি। সেখানে বক্তৃতা রাখার সময়ই তিনি বলেন, ‘এই বিষয়টি নিয়ে সংসদকেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে।’ তার কথায়, ‘নারীদের সুরক্ষা খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়।'

তবে এরই মধ্যে ২০১২ সালের গণধর্ষণ কাণ্ডে মূল অভিযুক্ত বিনয় শর্মার ক্ষমাপ্রার্থনার আবেদন রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

তবে শুধু শিশু ধর্ষক কেন, দেশের প্রতিটি ধর্ষকের জন্যেই কঠোর আইনের পক্ষপাতী অনেকেই। হায়দরাবাদে গণধর্ষণ ও খুনের পর সেই দাবি আরো জোরালো হয়েছিল। শুক্রবার সকালে পুলিশের গুলিতে চার অভিযুক্তের মৃত্যুর পর তাই সোশ্যাল মিডিয়াতেও বহু মানুষ এই পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছেন। অনেকেই আবার বিচারের আগেই এমন পদক্ষেপের সমালোচনা করেছেন।

দিল্লির নির্ভয়া গণধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডে এবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন জানিয়েছে অন্যতম ফাঁসির আসামি বিনয় শর্মা। এর আগে তার প্রাণভিক্ষার আবেদন খারিজ করে দিয়েছে দিল্লি সরকার। রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোভিন্দের কাছে বিনয় শর্মার আবেদন পাঠিয়েছে কেন্দ্র।

নির্ভয়া গণধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডে ফাঁসির সাজাপ্রাপ্ত চার অপরাধী বর্তমানে তিহাড় জেলে বন্দি। দেশের আইনগত সমস্ত সুযোগসুবিধা ইতোমধ্যেই পেয়েছে তারা। ফাঁসি রুখতে এখন তাদের একমাত্র পথ হল রাষ্ট্রপতির শরণাপন্ন হওয়া। সেই আর্জিতে রাষ্ট্রপতি সাড়া দেন কি-না, সেটাই এখন দেখার বিষয়।

সূত্র : এই সময়


আরো সংবাদ