২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০

পুলিশের গুলির ভিডিও ভাইরাল : কান্নায় ভেঙে পড়লেন নিহতের বাবা

পুলিশের গুলি চালানোর ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর কান্নায় ভেঙে পড়লেন সদ্য পুত্রহারা বৃদ্ধ। - ছবি : সংগৃহীত

ভারতে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (সিএএ) বিক্ষোভ চলাকালীন পুলিশের গুলিই প্রাণ কেড়ে নিয়েছে পরিবারের আদরের ছেলেটির, পুলিশের গুলি চালানোর ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর কান্নায় ভেঙে পড়লেন সদ্য পুত্রহারা এক বৃদ্ধ। কয়েকদিন আগেই যে ঘরে আলো জ্বলছিল, সেই ঘর এখন ছেলে হারানোর শোকে অন্ধকার।

প্রতিবাদ-বিক্ষোভ চলাকালীন সেটি সহিংস রূপ পেলে পরিস্থিতি সামাল দিতে গুলি চালায় পুলিশ। আর বিক্ষোভকারী-পুলিশ সংঘর্ষ চলাকালীনই পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারিয়েছেন ছেলে, এমনটাই অভিযোগ করছেন মৃত যুবকের বাবাসহ গোটা পরিবার। শুধু তাই নয়, গুলি লাগার পর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় ছেলেকে চোখের দেখাটুকুও দেখতে পারেননি তিনি। অভিযোগ উত্তরপ্রদেশের কানপুরের বাসিন্দা ওই ব্যক্তির।

শুক্রবার উত্তরপ্রদেশে সহিংস বিক্ষোভ চলাকালীন পুলিশের গুলি চালানোর আরো একটি ভিডিও প্রকাশ পেয়েছে। কানপুরেও পুলিশ গুলি চালাচ্ছে, প্রকাশ পেয়েছে সেই ভিডিও। ভিডিওতে দু’জন পুলিশকে গুলি চালাতে দেখা গেছে। কানপুরের ওই সহিংসতায় তিনজনের মৃত্যুর খবর মেলে। জানা গেছে, ওই যুবক তারই মধ্যে একজন।

সংবাদমাধ্যমের সাথে কথা বলতে গিয়ে নিহতের বাবা কান্নায় ভেঙে পড়েন। তিনি বলেন, ‘আমাদের জীবনও নষ্ট হয়ে গেছে। আমরা এখন কী করবো? ভিক্ষা করবো? কেউ আমাদের সাথে দেখা করতে আসেনি। চিকিৎসকরাও আমাদের ঠকিয়েছেন। আমার সন্তানের কোনো চিকিৎসা হয়নি। এমনকি আমাদের সন্তানের সাথে দেখা করতেও দেননি তারা। আমরা দিনমজুরি করি। আমাদের ছেলেও শ্রমিকের কাজ করতো। ঝামেলার দিন পুলিশের গুলি চলার সময় ভয়ে ও দৌড়ে পালাতে যায়। ও যখন রাস্তা পার হচ্ছিল তখনই ওকে লক্ষ করে গুলি চালানো হয়। পুলিশই গুলি চালায়। আমাদের ছেলে আমাদের জানিয়েছিল যে, ওর পেটে গুলি লাগে। ও মরে গেছে, আমাদের কী হবে’।

মৃত যুবকের বাবার হাহাকার এখন ঘুরে বেড়াচ্ছে কানপুরের হাওয়ায়।

একই সাথে, ইউপি পুলিশ কানপুর সহিংসতার সিসিটিভি ফুটেজও প্রকাশ করেছে। ভিডিওতে বিপুল সংখ্যক প্রতিবাদকারীকে পাথর প্রদর্শন করতে দেখা যায়। শুক্রবার ইউপির মুজাফফরনগরে সহিংস বিক্ষোভের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওতে পুলিশকে বাড়িঘর ভাঙচুর করতে দেখা গেছে। কয়েকটি পরিবারকে মারধরের অভিযোগও পাওয়া গেছে।

কানপুর থেকে পুলিশ গুলি চালানোর ভিডিওটি সামনে এসেছে, এই ভিডিওটি ২০ ডিসেম্বর শুক্রবার দুপুর তিনটার। ২০ ডিসেম্বর কানপুরে নাগরিকত্ব সংশোধন আইনের বিরুদ্ধে সহিংসতায় তিনজন নিহত হয়েছিল। একই সময়ে, ইউপি পুলিশ জানিয়েছে যে, কেবল রাবার বুলেট এবং পেললেট বন্দুক দিয়ে গুলি চালানো হয়েছিল। তবে ভিডিওতে পুলিশ সদস্যদের গুলি চালাতে দেখা গেছে।

এর আগেও কানপুরের একটি ভিডিও নিজেই প্রকাশ পেয়েছিল, যাতে ইউপি পুলিশ গুলি চালাতে দেখা গেছে। ভিডিওটি কানপুর এতিমখানা মোড়ের ছিল। বুলেট আঘাত বেশিরভাগ উত্তর প্রদেশ সহিংসতার মধ্যে ঘটেছে।

কানপুরে সহিংসতার আগে, ডিজিপি ওপি সিং দাবি করেছিলেন যে, পুলিশ গুলি চালায় না।

২১ ডিসেম্বর উত্তরপ্রদেশে নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ সহিংস রূপ পায়। কানপুর এবং রামপুরে উত্তেজিত জনতা বিভিন্ন যানবাহনে আগুন ধরিয়ে দিলে সেই সময়েই উত্তরপ্রদেশ পুলিশের সাথে সংঘর্ষ বাঁধে তাদের। উত্তরপ্রদেশ পুলিশ জানিয়েছে যে, সহিংসতার ঘটনায় আহত হয়েছেন ২৬০ জন পুলিশকর্মী, যার মধ্যে ৫৭ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

প্রথমে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ বিক্ষোভ লক্ষ করে গুলি চালানোর কথা পুরোপুরি অস্বীকার করে। পরে পুলিশের গুলি চালানোর ভিডিও ভাইরাল হওয়ায় আংশিকভাবে গুলি চালানোর কথা স্বীকার করে তারা।

সূত্র : এনডিটিভি

দেখুন:

আরো সংবাদ