২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০

‘পেটে লাথি মেরে পুলিশ বলল পাকিস্তানে চলে যাও’

সদাফ জাফর - ছবি : সংগৃহীত

লখনউয়ে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (সিএএ) বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখানোর সময় গ্রেফতার। ১৯ দিন পর, মঙ্গলবার জামিনে মুক্তি পেয়ে যোগী আদিত্যনাথের পুলিশের বিরুদ্ধে অত্যাচারের অভিযোগ তুললেন অভিনেত্রী তথা সমাজকর্মী সদাফ জাফর।

গত ১৯ ডিসেম্বর উত্তর প্রদেশের রাজধানী লখনউয়ের পরিবর্তন চক এলাকায় চলছিল সিএএ বিরোধী বিক্ষোভ। তা ফেসবুকে লাইভে তুলে ধরছিলেন বিক্ষোভে অংশগ্রহণকারী সদাফ জাফর। জেল থেকে মুক্তি পাওয়ার পর, সে দিনের ভয়াবহ অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেছেন সদাফ। জানিয়েছেন, ‘পুলিশ আমাকে গালিগালাজ করছিল। আমাকে প্রথমে এক জন মহিলা পুলিশকর্মী চড় মারেন। তার পর মারেন এক পুরুষ অফিসার। ওই পুরুষ অফিসার নিজেকে ইন্সপেক্টর জেনারেল পদমর্যাদার অফিসার বলে দাবি করেছিলেন। তিনিই আমার পেটে লাথি মারেন এবং বলেন পাকিস্তানে চলে যাও।’

সদাফ জাফরের গ্রেফতারের ঘটনা ঝড় তুলেছিল ভারত জুড়ে। এ দিন তিনি জেলের যে অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেছেন তা শিউরে ওঠার মতো। তার দাবি, ‘হজরতগঞ্জ পুলিশ স্টেশনের জেল হেফাজতে থাকাকালীন কেউ আমার সাথে দেখা করতে এলে তাকে আটকে রাখা হতো। মনে হতো, আমি যেন ব্ল্যাক হোলের মধ্যে রয়েছি।’

সদাফের দাবি, ‘জেলের মধ্যে থাকাকালীন এই ঠাণ্ডাতেও আমাকে কম্বল বা খাবার দেয়া হয়নি।’ তার দাবি, বিক্ষোভ দেখানোর ফলে, বহু নিরপরাধ মানুষকে গ্রেফতার করেছে যোগী আদিত্যনাথের পুলিশ।

গত সপ্তাহেই জামিন পেয়েছেন সদাফ। তার আইনজীবী হরজৌত সিংহ বলছেন, ‘সদাফকে সহিংসতা ছড়ানোর মিথ্যা অভিযোগে ফাঁসিয়ে দেয়া হয়েছিল।’ তার দাবি, সদাফ সম্পর্কে লখনউ পুলিশ আদালতকে জানিয়েছে, ‘তার বিরুদ্ধে অগ্নিসংযোগ বা সহিংসতা ছড়ানোর কোনো প্রমাণ এখনো পর্যন্ত মেলেনি।’

মামলাতেও অবশ্য প্রতিবাদের রাস্তা থেকে সরতে নারাজ সদাফ জাফর। বলছেন, ‘যারা গণতন্ত্রে আস্থা রাখেন তারা যা ঘটছে তার প্রতিবাদ করবেনই। সামনে এখনো লম্বা লড়াই।’

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা


আরো সংবাদ