২২ আগস্ট ২০১৯

সুনামগঞ্জে ৩৩ মাদক ব্যবসায়ী পরিবারের আত্মসমর্পন

সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার আটগাঁও ইউনিয়নের চিকাডুবি, বল্লবপুর, নতুনপাড়া গ্রামের ৩৩টি মাদক ব্যবসায়ী পরিবারের লোকজন আত্মসমর্পণ করেছে - নয়া দিগন্ত

সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার আটগাঁও ইউনিয়নের চিকাডুবি, বল্লবপুর, নতুনপাড়া গ্রামের ৩৩টি মাদক ব্যবসায়ী পরিবারের লোকজন আত্মসমর্পণ করেছে। এসময় তারা প্রতিজ্ঞা করে বলে ‘আমরা আর মদ বিক্রি করবো না, নিজেরাও খাবো না’।

বুধবার বিকাল ৪ টায় জেলার শাল্লা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে স্ব উদ্যোগে সকল পরিবারের নারী-পুরুষরা আত্মসমর্পণ করেন।

এ সময় উপজেলা চেয়ারম্যান চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আল মুক্তাদির হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাড. দিপু রঞ্জন দাস, শাল্লা থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ আশরাফুল ইসলাম, আটগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আবুল কাশেম আজাদসহ বিভিন্ন পত্রিকার সাংবাদিক ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

আত্মসমর্পণকালে বলব্লপুর গ্রামের মাদক বিক্রেতা সুরুজ আলী বলেন, আমরা আর কোনোদিন মাদক বিক্রি করবো না, আমরা স্বেচ্ছায় আত্মসমর্পণ করেছি। আমরা বুঝতে পেরেছি আমাদের কাজটা অত্যন্ত খারাপ। ইহা দেশ ও জাতির জন্য ক্ষতিকর।চিকাডুবি গ্রামের মাদক বিক্রেতা লাল মিয়া বলেন, আমরা মাদক বিক্রয়ের সাথে জড়িত ছিলাম। এর জন্য আমরা সমাজের চোখে শত্রু ছিলাম। দীর্ঘদিন পর এটা আমরা বুঝতে পেরে আজ আমরা প্রতিজ্ঞা করলাম যে, এমন জঘন্যতম কাজ আর কোনদিন করবো না।

এ ব্যাপারে আটগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আবুল কাশেম আজাদ বলেন, দীর্ঘদিন পর তাদের মধ্যে এ অপরাধবোধ জাগ্রত হওয়ায় তারা নিজ উদ্যোগে মাদকের বিরুদ্ধে প্রতিজ্ঞা করায় আজ থেকে তারা সমাজে সহাবস্থান পাবে। আশা করি কেউ তাদেরকে আর অবজ্ঞার চোখে দেখবে না। আমরাও তাদেরকে সরকারি বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার পাশাপাশি কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দিতে চেষ্টা করবো।

মাদক ব্যবসায়ীদের আত্মসমর্পণ কালে উপজেলা চেয়ারম্যান চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বলেন, দীর্ঘদিন পর হলেও ভাল পথে ফিরে আসার জন্য তাদেরকে অসংখ্য ধন্যবাদ। সরকারের পক্ষ থেকে তাদেরকে সকল প্রকার সহযোগিতা করা হবে। তিনি আত্মসমর্পণকারীদের সন্তানদের নিয়মিত স্কুলে পাঠানোর জন্য অনুরোধ জানান।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আল মুক্তাদির হোসেন আত্মসমর্পণকারীদের পুনর্বাসনের জন্য উপজেলা প্রশাসনের সর্বাত্মক সহযোগিতা থাকবে আশ্বস্ত করেন।

উল্লেখ্য, বিগত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে তৎকালীন সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক জাফর সিদ্দিকীর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দিরাই ও শাল্লা উপজেলার সাতটি চোরা বস্তির লোকদের পুর্নঃবাসনের ব্যবস্থা করা হয়েছিল।।

 


আরো সংবাদ