২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সিলেটে তাজিয়া মিছিলে সংঘর্ষ : নিহত ১, আহত ২

আব্দুল খালিক - ছবি : সংগৃহীত

সিলেটের ওসমানীনগরে মর্হরমের তাজিয়া মিছিল নিয়ে মাজারে নিয়ে যাওয়ার পথে এক পক্ষের তাজিয়ায় অপর পক্ষের তাজিয়া লেগে যাওয়ার জের ধরে উভয় পক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহতসহ অপর দু'জন আহত হয়েছেন। নিহতের নাম আব্দুল খালিক (৪৭)। তিনি উপজেলার গোয়ালাবাজার ইউনিয়নের করনসি দক্ষিণপাড়া গ্রামের মৃত ময়না মিয়ার ছেলে। আহত দু'জন হলেন নিহতের ভাতিজা আনোয়ার মিয়া (২৫), ও গ্রামের মৃত ছমরু মিয়ার ছেলে হিরন মিয়া (৩৫)।

জানা যায়,গত ৯ সেপ্টেম্বর সোমবার রাত সাড়ে ৯টায় উপজেলার গোয়ালাবাজার ইউনিয়নের নিজকরনসি দক্ষিণ পাড়া গ্রামে মহররমের তাজিয়া নিয়ে নিজকরনসি মাইজগাঁওস্থ পাঞ্জাতনের (কটাইর মোকাম) মোকামে যাওয়ার পথে এক পক্ষের তাজিয়ার সাথে অপর পক্ষের তাজিয়ার ধাক্কা লেগে গেলে আব্দুল খালিক ও আবদুর রশিদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। দুইজনের কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে উভয় পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। তখন আনোয়ার ও হিরন নামের দুজন আহত হন। বিষয়টি জানতে পেরে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে মধ্যস্থতায় পড়লে সংঘর্ষ থেমে যায়। সংঘষের্র কিছুক্ষণ পর বাড়িতে গিয়ে আব্দুল খালিক মৃত্যুবরণ করেন। এরপর উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ওসমানীনগর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহতের লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে ময়না তদন্তের জন্যে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠান। তাছাড়া এলাকার বেশ শান্ত রাখার জন্য গ্রামে পুলিশ মোতায়েন করেন। ময়না তদন্ত শেষে গতকাল ১০ সেপ্টেম্বর বাদ আসর নিজ করনসি গ্রামে জানাজা শেষে নিহতের লাশ দাফন করা হয়েছে। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত থানায় কোন লিখিত এজাহার দায়ের করা হয়নি।

নিহতের ছেলে সুমন মিয়া জানান, পবিত্র মর্হরমের মাসে মাজারে তাজিয়া নিয়ে যাওয়ার সময় ওরা আমাদের মারধর করে। তাদের মার এর কারণেই আমার বাবা মারা গেছেন। আমি দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

প্রতিপক্ষ জামাল মিয়া (২৬) জানান, তাজিয়া নিয়ে লোকজন মাজারে যাওয়ার পথে একটি তাজিয়ার সাথে অন্য একটি তাজিয়া লেগে যায়। এসময় আনোয়ার মিয়া আমাদের গালমন্দ করেন। তার গালমন্দ শুনে উভয়পক্ষের মধ্যে ধাক্কাধাক্কি হয়। বিষয়টি শেষ হয়ে গেলে বাড়িতে গিয়ে আব্দুল খালিক স্ট্রোক করে মারা যান। তারা এখন এটাকে হত্যাকাণ্ড বলে আমাদের ফাঁসাতে চাইছে। তিনি আগেও একবার স্ট্রোক করেছিলেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য সৈয়দ জাহান আলী জানান, তাজিয়া নিয়ে সংঘর্ষ হয়েছে ঠিক, তবে আব্দুল খালিক সংঘর্ষে মারা গছেন না স্বাভাবিক অবস্থায় মারা গছেন এটা বলা যাচ্ছেনা।

গোয়ালাবাজার ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মানিক জানান, করনসি দক্ষিণপাড়া গ্রামের আব্দুল খালিক নামের একজন মারা গেছেন। আমি এখন তার জানাজায় আছি, পরে কথা বলবো।

ওসমানীনগর থানার ওসি এসএম আল মামুন বলেন, থানার অফিসার মৃত ব্যক্তির সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরী করেছেন। মৃতের শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়নি। স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে পেয়েছি তিনি মধ্যস্থতায় ছিলেন। হয়তো ঝগড়া থামাতে গিয়ে স্ট্রোক করে মারা যেতেও পারেন। সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃতের ময়না তদন্ত হয়েছে। রিপোর্ট আসার পর জানা যাবে কী কারণে তিনি মারা গেছেন।


আরো সংবাদ

সাংবাদিক শিমুল হত্যা মামলা চলতে বাধা নেই টেকসই উন্নয়নে প্রজনন স্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে হবে ছাত্রলীগের পর যুবলীগ ধরেছি: প্রধানমন্ত্রী স্কুল ছাত্রকে খ্রিষ্টান ধর্মে দীক্ষিতের প্রতিবাদে আলেম-উলামাদের মানববন্ধন তিউনিসিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট বেন আলীর ইন্তেকাল বিএনপির সাথে ব্রিটিশ কনজারভেটিভ পার্টির বৈঠক গ্রাহকদের কাছ থেকে ইচ্ছেমতো তথ্য সংগ্রহ করছে ব্যাংকগুলো আদালতে বোরকা পরিহিত মিন্নির ছবি তোলা ব্যক্তি কে? কাউন্সিলরদের প্রত্যক্ষ ভোটেই হলো ছাত্রদলের নেতৃত্ব নির্বাচন উন্নয়নের নামে মানুষকে বিপথগামী করা হয়েছে : ড. মঈন খান ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নেমে যাওয়ায় সময় এসেছে বৃষ্টির পানি ব্যবহারের

সকল