২৩ নভেম্বর ২০১৯

মেয়র আরিফের পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেননি বিএনপি মহাসচিব

সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র ও বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আরিফুল হক চৌধুরীর পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেননি বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

জানা যায়, রোববার সকালে বিএনপির চেয়ারপারসনের গুলাশানের কার্যালয়ে পদত্যাগপত্র জমা দিতে যান আরিফ এবং বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-ক্ষুদ্র ঋণবিষয়ক সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক ও ডা. শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী।

মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী জানান, তারা পদতাগপত্র জমা দিলে বিএনপির মহাসচিব তাদের পদত্যাগপত্র গ্রহণ না করে বলেন, সিলেট জেলা ও মহানগর যুবদলের আহবায়ক কমিটি নিয়ে তিনি অবগত আছেন। এ বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ।

গত শুক্রবার সিলেটে জেলা ও মহানগর যুবদলের কমিটি গঠনের পরপরই যুবদল ও বিএনপির একাংশের নেতাদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দেয়। এ নিয়ে ওইদিন রাতে নগরীর কুমারপাড়া এলাকায় সভা করেন বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা। সভায় বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-ক্ষুদ্র ঋণবিষয়ক সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক, কেন্দ্রীয় সদস্য ও সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী এবং ডা. শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী দলীয় পদ থেকে পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নেন।

এই সিদ্ধান্তের আলোকে রোববার সিলেট বিএনপির তিন কেন্দ্রীয় নেতা পদত্যাগপত্র জমা দিতে গেলে মহাসচিব তাদের পদত্যাগপত্র গ্রহণ না করে দলের কল্যাণে নিজ নিজ দায়িত্ব যথাযথভাবে পালনের আহবান জানান। দলের মহাসচিবের এমন আশ্বাসে পদত্যাগপত্র জমা না দিয়েই ফিরে আসেন এই তিন নেতা।

উল্লেখ্য, প্রায় দেড়যুগ পর গত শুক্রবার সিলেট জেলা ও মহানগর যুবদলের নয়া আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। শুক্রবার বিকেলে কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক সহ-সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান পাপলুকে আহ্বায়ক করে ২৯ সদস্যের জেলা কমিটি ও সাবেক ছাত্রনেতা নজিবুর রহমান নজিবকে আহ্বায়ক করে ২৭ সদস্যের মহানগর কমিটি ঘোষণা করা হয়। যুবদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইফুল আলম নীরব ও সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু এ কমিটি অনুমোদন দেন। এ কমিটি ঘোষণার পরপরই বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন যুবদলের পাশাপাশি বিএনপির একাংশের নেতারা।


আরো সংবাদ