১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় দশম অধ্যায় : গণতান্ত্রিক মনোভাব

-

প্রিয় প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনীর শিক্ষার্থী বন্ধুরা, শুভেচ্ছা নিয়ো। আজ তোমাদের বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় বিষয়ের ‘দশম অধ্যায় : গণতান্ত্রিক মনোভাব’ থেকে ১৬টি সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর নিয়ে আলোচনা করব।
সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর
প্রশ্ন : গণতান্ত্রিক মনোভাব কী?
উত্তর : গণতান্ত্রিক মনোভাব একটি সামাজিক গুণ।
প্রশ্ন : কার নেতৃত্বে দলের কাজ করা হয়?
উত্তর : দলনেতার নেতৃত্বে দলের কাজ করা হয়।
প্রশ্ন : গণতন্ত্রের মূলকথা কী?
উত্তর : গণতন্ত্রের মূলকথা হলো সবার মতকে সম্মান করা এবং অধিকাংশের মত অনুসারে সিদ্ধান্ত নেয়া।
প্রশ্ন : বাংলাদেশ কোন ধরনের রাষ্ট্র?
উত্তর : বাংলাদেশ একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র।
প্রশ্ন : গণতন্ত্র মানুষকে কিসের সুযোগ দেয়?
উত্তর : গণতন্ত্র মানুষকে মত প্রকাশের সুযোগ দেয়, নির্বাচনপ্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেয়।
প্রশ্ন : শান্তিপূর্ণ সমাজ গঠনে অপরিহার্য বিষয়টি লিখ।
উত্তর : শান্তিপূর্ণ সমাজ গঠনে অপরিহার্য বিষয় হলো গণতান্ত্রিক মনোভাব।
প্রশ্ন : দেশকে উত্তম গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে পরিণত করার উপায় লিখ।
উত্তর : দেশকে উত্তম গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে পরিণত করার উপায় হলো জীবনের সব ক্ষেত্রে গণতান্ত্রিক আচরণ করা।
প্রশ্ন : কোন ব্যবস্থায় কাউকে জোর করে কিছু করা হয় না?
উত্তর : গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় কাউকে জোর করে কিছু করা হয় না।
প্রশ্ন : যে ব্যবস্থা মানুষকে মতামত প্রকাশের সুযোগ দেয় তা লিখ।
উত্তর : গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা মানুষকে মতামত প্রকাশের সুযোগ দেয়।
প্রশ্ন : সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য কী প্রয়োজন?
উত্তর : ঐকমত্য প্রয়োজন।
প্রশ্ন : গণতান্ত্রিক মনোভাব কী রকম গুণ?
উত্তর : ব্যক্তিগত ও সামাজিক গুণ।
প্রশ্ন : কার নেতৃত্বে দলের কাজ করা হয়?
উত্তর : দলনেতার নেতৃত্বে।
প্রশ্ন : দলের নেতা নির্বাচনের সময় কী রকম মনোভাব দেখাতে হবে?
উত্তর : গণতান্ত্রিক মনোভাব।
প্রশ্ন : গণতন্ত্রে সবাই খুশি থাকে কেন?
উত্তর : অধিকাংশ ব্যক্তির মতের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেয়া হয় বলে।
প্রশ্ন : কোন শাসনব্যবস্থায় কাউকে জোর করে কিছু করা হয় না?
উত্তর : গণতন্ত্রে।
প্রশ্ন : অধিকাংশ লোকের মতামতের ওপর আমাদের কী প্রদর্শন করা উচিত?
উত্তর : অধিকাংশ লোকের মতামতের ওপর আমাদের সম্মান প্রদর্শন করা উচিত।

 


আরো সংবাদ