২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০

জীববিজ্ঞান দশম অধ্যায় : সমন্বয়

-

সুপ্রিয় ২০২০ সালের এসএসসি পরীক্ষার শিক্ষার্থী বন্ধুরা, শুভেচ্ছা নিয়ো। আজ তোমাদের জীববিজ্ঞান বিষয়ের ‘দশম অধ্যায় : সমন্বয়’ থেকে একটি নমুনা সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর নিয়ে আলোচনা করা হলো।
নিচের অনুচ্ছেদটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও।
অহনা বাবার সাথে কৃষি খামারে ঘুরতে গিয়ে বিভিন্ন ধরনের গাছ পর্যবেক্ষণ করে। সে দেখল একটি ঘরে আলো জ্বালিয়ে ছোট ছোট চারাগাছ রাখা আছে এবং ঘরটি বেশ ঠাণ্ডা। সে আরো দেখল, কিছু ফলজগাছের ফুল ফুটছে না, ছোট অবস্থায় ফলগুলো ঝরে পড়ছে।
ক. বায়োলজিক্যাল ক্লক কী? ১
খ. ভার্নালাইজেশন বলতে কী বোঝায়? ২
গ. উদ্দীপকে ফলজগাছগুলোতে এরূপ সমস্যার কারণ ব্যাখ্যা করো। ৩
ঘ. অহনার দেখা গাছগুলো উক্ত পরিবেশে রাখার কারণ বিশ্লেষণ করো। ৪
উত্তর : ক. উদ্ভিদের আলো-অন্ধকারের ছন্দকে বায়োলজিক্যাল ক্লক বলে।
খ. শৈত্য প্রদানের মাধ্যমে উদ্ভিদের ফুল ধারণকে ত্বরান্বিত করার প্রক্রিয়াকে ভার্নালাইজেশন বলে। এতে রাশিয়ার দ্বিবার্ষিক গমকে বর্ষজীবী গমে পরিণত করা হয়েছে।
গ. উদ্ভিদের বৃদ্ধি ও ফুল, ফল ধারণের বিষয়টি অনেকাংশে নির্ভর করে আবহাওয়া, পরিবেশ এবং শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়ার ওপর। এ বিষয়গুলো সঠিক না থাকলে উদ্ভিদের নানা ধরনের সমস্যা দেখা দেবে। অহনার দেখা কৃষি খামারের উদ্ভিদগুলোরও এ রকম সমস্যা হয়েছিল। খামারের ফলজগাছগুলো বড় দিনের উদ্ভিদ। কিন্তু তাদের ছোট দিনে লাগানো হয়েছিল। ফলে গাছগুলো যথাযথভাবে আলো পাচ্ছিল না এবং ফুল ফুটতে দেরি হচ্ছিল। তা ছাড়া গাছগুলোতে ফুল ফোটার জন্য দায়ী হরমোন ফ্লোরিজেন ও ভার্নালিনের অভাব ছিল। তাই গাছগুলোতে ফুল ফোটেনি।
খামারের ফলজগাছগুলোতে আরেকটি সমস্যা দেখা গেছে। কিছু ফলজগাছের ফল ঝরে পড়ছে। এ সমস্যাটিও উদ্ভিদের দেহে অবস্থিত হরমোনের প্রভাবে হচ্ছিল। উদ্ভিদে কিছু হরমোন আছে যা ফুল, ফল, পাতা প্রভৃতি ঝরে পড়তে সাহায্য করে। সাধারণ কচি ফলের বোঁটায় এ হরমোনগুলো বেশি উৎপন্ন হয়। কচি ফল ঝরে পড়ে ইথিলিন ও অ্যাবসিসিক এসিড নামে হরমোনের কারণে। খামারের ফলজগাছগুলোতেও এ হরমোনগুলো কাজ করছিল বলেই ছোট ফলগুলো ঝরে পড়ছিল।
ঘ. আমরা জানি, উদ্ভিদের ফুল ফোটা ও ফল হওয়ার ওপর দিবালোকের দৈর্ঘ্যরে প্রভাব রয়েছে। বড় দিনের উদ্ভিদে অতিরিক্ত আলোর ব্যবস্থা করে ফুল ধারণের সময়কে এগিয়ে আনা যায়। এ আলো উদ্ভিদের বৃদ্ধি, বিকাশ এবং শাখা-প্রশাখা তৈরিতে ভূমিকা রেখে ফুল ও ফল ধারণ ত্বরান্বিত করে। ফলে ফলন তাড়াতাড়ি পাওয়া যায়। খামারের চাষিরাও এ কারণে চারাগাছগুলোতে অধিক আলোর ব্যবস্থা করেছিলেন যেন গাছগুলো তাড়াতাড়ি ফুল ও ফল ধারণ করে। অন্য দিকে উদ্ভিদের ওপর তাপ ও শৈত্যের প্রভাবকে ভার্নালাইজেশন বলে। অঙ্কুরিত বীজ অথবা ছোট চারাগাছকে শৈত্য প্রদান করলে তার ফুল ও ফল ধারণ ত্বরান্বিত হয়। ভার্নালাইজেশন প্রক্রিয়া উদ্ভিদ ভ্রƒণের অগ্রভাগে ভার্নালিন নামক এক প্রকার পুষ্প উদ্ভিদ হরমোন তৈরি করে ফুল ও ফল ধারণকে বেগবান করে।
সুতরাং অহনার দেখা কৃষি খামারে গাছগুলো উক্ত পরিবেশে রাখার কারণ ছিল অধিক ও আগাম ফল ধারণের মাধ্যমে ব্যবসায়িকভাবে লাভবান হওয়া।


আরো সংবাদ